করোনার উর্ধ্বমুখী সংক্রমণ প্রতিরোধে শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান বন্ধের পাশাপাশি অর্ধেক লোকবল দিয়ে অফিস আদালত পরিচালনার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক।

শুক্রবার (২১ জানুয়ারি) স্বাস্থ্য অধিদফতরে আয়োজিত দেশের করোনা সংক্রমণ পরিস্থিতি নিয়ে বিশেষ সংবাদ সম্মেলনে নতুন আরোপিত বিধিনিষেধ নিয়ে আলোচনায় তিনি এ তথ্য জানান।

এই বিষয়ক প্রজ্ঞাপন খুব শিগগিরই চলে আসবে উল্লেখ করে স্বাস্থ্যমন্ত্রী জানান, গণপরিবহনে ভোগান্তি কমাতে অর্ধেক লোক দিয়ে অফিস করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জাহিদ মালেক বলেন, সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণেই ১১ দফা বিধিনিষেধ। সবাইকেই এগুলো মেনে চলতে হবে। আমরা আগেও বিধিনিষেধ দিয়েছি, এগুলো কার্যকরের চেষ্টা চলছে। সংক্রমণ যাতে কমে সেজন্য এই সিদ্ধান্ত।

এসময় মন্ত্রী বলেন, নির্দেশনা বাস্তবায়নের দায়িত্ব প্রশাসনের এমনটা জানিয়ে আমরা চাইব, তারা যেন আরও নজরদারি বাড়ান।

জনগণের দায়িত্ব আরও বেশি উল্লেখ করে তিনি আরও বলেন, সরকার বিধিনিষেধ দিতে পারে, কিন্তু মানার দায়িত্ব জনগণের। জনগণই পারবে দেশের অর্থনৈতিক অগ্রগতি চালিয়ে নিতে।

এর আগে, গত বছরের ২৯ মার্চ করোনাভাইরাস সংক্রমণ বাড়তে থাকায় প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয় থেকে এক নির্দেশনায় জরুরি সেবায় নিয়োজিত প্রতিষ্ঠান ছাড়া সব সরকারি, বেসরকারি অফিস, শিল্প কারখানা ৫০ ভাগ জনবল দিয়ে পরিচালনার নির্দেশ দেওয়া হয়।

একইসঙ্গে গর্ভবতী, অসুস্থ ও ৫৫ বছরের বেশি বয়সীদের বাড়িতে অবস্থান করে কাজ করার ব্যবস্থা করতে বলা হয়। পরবর্তী সময়ে ৪ এপ্রিল থেকে সরকারি সব দপ্তরে অর্ধেক জনবলে অফিস কার্যক্রম শুরু হয়।