ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগ (আইপিএল) ক্রিকেটের এবারের আসরের শুরুটা একদমই মনে রাখতে চাইবেন না রয়েল চ্যালেঞ্জার্স ব্যাঙ্গালুরু অধিনায়ক বিরাট কোহলি। তার দল ভালো করতে থাকলেও, ব্যাট হাতে পুরোপুরি নিষ্প্রভ ছিলেন ভারতীয় ক্রিকেট দলের বর্তমান অধিনায়ক। পারফরম্যান্সে ছিলো না নিজের সেরা ছন্দের ছিটেফোঁটাও।

প্রথম তিন ম্যাচে কোহলির রান ছিল যথাক্রমে ১৪, ১ ও ৩, অর্থাৎ সবমিলিয়ে মাত্র ১৮ রান। আইপিএলের ১৩ আসরের ইতিহাসে এত বাজে শুরু আগে কখনও হয়নি কোহলির” এত বাজে শুরু আগে কখনও হয়নি কোহলির। যেখানে তিন ম্যাচ মিলেও ২০ রান করতে পারেননি তিনি। এমন হতাশাজনক শুরুর পর তার ব্যাটিং নিয়ে নানান কথাও শুরু হয়ে গেছিল।

তবে চতুর্থ ম্যাচেই দুর্দান্ত প্রত্যাবর্তন করলেন বর্তমান সময়ের অন্যতম সেরা এ ব্যাটসম্যান। শনিবার রাজস্থান রয়্যালসের বিপক্ষে হাঁকিয়েছেন আইপিএল ক্যারিয়ারের ৩৭তম ও সবমিলিয়ে টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারের ৬৫তম ফিফটি। দলকে জিতিয়ে মাঠ ছাড়ার আগে খেলেছেন ৫৩ বলে ৭ চার ও ২ ছয়ের মারে ৭২ রানের ইনিংস।

আর এই ইনিংসের মাধ্যমেই আইপিএলের ইতিহাসে নতুন মাইলফলক স্থাপন করেছেন কোহলি। টুর্নামেন্টের প্রথম ব্যাটসম্যান হিসেবে গড়েছেন সাড়ে ৫ হাজার রানের রেকর্ড। আইপিএলে মাত্র তিনজন ব্যাটসম্যানের রয়েছে ৫ হাজারের বেশি রানের কীর্তি। এদের মধ্যে শুধুমাত্র বিরাট কোহলিই পৌঁছে গেছেন সাড়ে ৫ হাজারের ঘরে।

শনিবারের ম্যাচের পর আইপিএল ক্যারিয়ারে কোহলির মোট সংগ্রহ ১৭৩ ইনিংসে ৩৭.৬৮ গড়ে ৫৫০২ রান। টুর্নামেন্টে ৫টি সেঞ্চুরির পাশাপাশি ৩৭টি ফিফটি হাঁকিয়েছেন এ ব্যাটিং মায়েস্ত্রো। এছাড়া ৫ হাজারের বেশি রান করা অন্য দুই ব্যাটসম্যান হলেন সুরেশ রায়না ও রোহিত শর্মা।

আইপিএলে সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক
১/ বিরাট কোহলি – ১৭৩ ইনিংসে ৫৫০২ রান, সর্বোচ্চ ১১৩
২/ সুরেশ রায়না – ১৮৯ ইনিংসে ৫৩৮ রান, সর্বোচ্চ ১০০*
৩/ রোহিত শর্মা – ১৮৭ ইনিংসে ৫০৬৮ রান, সর্বোচ্চ ১০৯*
৪/ ডেভিড ওয়ার্নার – ১৩০ ইনিংসে ৪৮২১ রান, সর্বোচ্চ ১২৬
৫/ শিখর ধাওয়ান – ১৬২ ইনিংসে ৪৬৭৪ রান, সর্বোচ্চ ৯৭*

এদিকে আইপিএলে সাড়ে ৫ হাজার রানের মাইলফলক ছোঁয়ার পাশাপাশি নিজের টি-টোয়েন্টি ক্যারিয়ারেও দারুণ এক কীর্তির খুব কাছে পৌঁছে গেছেন কোহলি। বর্তমানে কুড়ি ওভারের ক্রিকেটে তার সংগ্রহ ৮৯৯০ রান। আর মাত্র ১০ রান হলেই বিশ্বের সপ্তম ব্যাটসম্যান হিসেবে টি-টোয়েন্টিতে ৯ হাজার রানের মাইলফলকে পৌঁছে যাবেন তিনি।