করোনাভাইরাস সংক্রমণে কঠোর সতর্কতামূলক ব্যবস্থাপনার মধ্যেই দ্বিতীয় বছরের মতো হজ পালন করছেন হাজীরা। সোমবার হজের দ্বিতীয় দিন তারা মিনা থেকে দক্ষিণ পূর্বে আরাফাতের ময়দানে এসে হাজির হচ্ছেন।

আরাফাতের ময়দানে সোমবার সন্ধ্যা পর্যন্ত অবস্থান করবেন হাজীরা। এই সময় তারা মসজিদে নামিরায় হজের খুতবাসহ একত্রে জোহর ও আসর নামাজ আদায় করবেন। এই বছর মসজিদুল হারামের ইমাম ও খতিব ড. শেখ বানদার বিন আবদুল আজিজ বালিলা আরাফাতের দিনে হজের খোতবা দিবেন।

আরাফাতের ময়দানে সারাদিন অবস্থানের পর সন্ধ্যায় হাজীরা মিনা ও আরাফাতের মধ্যবর্তী মুজদালিফায় গিয়ে রাত্রিযাপন করবেন।

মুজদালিফায় একত্রে মাগরিব ও এশার নামাজ আদায় করে সেখান থেকে মিনায় শয়তানকে প্রতীকি পাথর নিক্ষেপের জন্য নুড়িপাথর সংগ্রহ করবেন তারা।

সারারাত মুজদালিফায় অবস্থানের পর মঙ্গলবার মিনায় গিয়ে হাজীরা তিন জামরাতে শয়তানকে প্রতীকি পাথর নিক্ষেপ, কোরবানী ও চুল কাটার মধ্য দিয়ে ইহরাম থেকে মুক্ত হবেন।

এর আগে হজের মূল আনুষ্ঠানিকতায় রোববার মক্কা থেকে পূর্বে মিনায় উপস্থিত হন হাজীরা। সেখানে তারা সারাদিন ও রাত ইবাদতের মধ্যে কাটান।

এদিকে সৌদি আরবের গ্র্যান্ড মুফতি শেখ আবদুল আজিজ বিন আবদুল্লাহ আল-শেখ হাজীদের প্রতি হজের দিনগুলোতে তাদের পুরো সময় ‘আল্লাহর জন্য উৎসর্গের’ আহ্বান জানিয়েছেন। পাশাপাশি করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে সতর্কতামূলক ব্যবস্থা মেনে চলারও তিনি আহ্বান জানান।

করোনা ভাইরাস সংক্রমণে সতর্কতায় এই বছর করোনা প্রতিরোধী টিকা নেয়া মাত্র ৬০ হাজার আবেদনকারী হজের অনুমতি পেয়েছেন। সৌদি আরবের বাইরে থেকে এই বছরও কোনো আবেদনকারীকে হজে অংশ নেয়ার অনুমতি দেয়া হয়নি। শুধু ১৫-৬৫ বছর বয়সী সৌদি নাগরিক ও দেশটিতে বাস করা ১৫০ দেশের নাগরিক হজ করার সুযোগ পেয়েছেন।

সূত্র : আরব নিউজ