ঈদুল ফিতর কেন্দ্র করে টেকনাফের উখিয়ায় ক্যাম্পে বসবাসকারী রোহিঙ্গাদের অবাধ বিচরণ বন্ধে সাঁড়াশি অভিযান চালায় দায়িত্বরত ৮ আর্মড পুলিশ ব্যাটালিয়ন (এপিবিএন)।

আজ বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর তিনটা পর্যন্ত অভিযান চালিয়ে ক্যাম্পের চেকপোস্ট থেকে ২০৩ রোহিঙ্গাকে আটক করা হয়। এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন ৮ এপিবিএন-এর অতিরিক্ত পুলিশ সুপার (গণমাধ্যম) মোঃ কামরান হোসেন।

তিনি জানিয়েছেন, বৃহস্পতিবার সকাল থেকে চলমান সাঁড়াশি অভিযানে ৮ এপিবিএন-এর ক্যাম্পসমূহের চেকপোস্ট সংলগ্ন বাইরের এলাকা এবং ক্যাম্প এলাকার বাইরে থেকে চেকপোস্ট দিয়ে ভেতরে অবাধে আসা-যাওয়া করার সময় ২০৩ রোহিঙ্গা সদস্যকে আটক করা হয়েছে।

আটককৃতদের বিরুদ্ধে সংশ্লিষ্ট ক্যাম্প-ইন-চার্জদের (সিআইসি) মাধ্যমে মোবাইলকোর্ট পরিচালনা প্রক্রিয়াধীন রয়েছে।

ঈদুল ফিতর উপলক্ষে নিরাপত্তা ব্যবস্থা জোরদারকরণ এবং আইনশৃঙ্খলা পরিস্থিতি স্বাভাবিক রাখতে রোহিঙ্গা সদস্যদের ক্যাম্প এলাকার বাইরে যাতায়াত রোধে এ সাড়াশি অভিযান পরিচালনা করা হয়। এ ধরনের অভিযান নিয়মিত পরিচালনা করা হলেও ঈদ উপলক্ষে তা জোরদার করা হয় যা চলমান থাকবে বলে তিনি জানান।

এর আগে ঈদ উপলক্ষে কক্সবাজার সমুদ্র সৈকত ও আশপাশের এলাকায় ঘুরতে গিয়ে পুলিশের হাতে আটক হয় ৪৪৩ রোহিঙ্গা।

বুধবার দুপুর থেকে বিকেল পর্যন্ত সাঁড়াশি অভিযান চালিয়ে তাদের আটক করা হয়। এদিন আটককৃতদের কক্সবাজার সদর থানা পুলিশের হেফাজতে রাখা হয়। পরে তাদের ক্যাম্প ভিত্তিক তালিকা তৈরি করে শরণার্থী ত্রাণ ও প্রত্যাবাসন কমিশনারের কাছে হস্তান্তর করার কথা রয়েছে বলে জানিয়েছেন কক্সবাজারের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার মো. রফিকুল ইসলাম।

এর আগে সৈকতের সুগন্ধা পয়েন্টে গোসল করতে নেমে মো. সাইফুল নামে এক রোহিঙ্গা কিশোরের মৃত্যু হয়।

সময় আহত অবস্থায় উদ্ধার করা হয় রায়হান নামে আরও এক রোহিঙ্গা কিশোরকে।