মেজর অব. সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ হত্যা মামলার প্রধান আসামি টেকনাফ থানার বরখাস্ত ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) প্রদীপ কুমার দাশকে চট্টগ্রামের আদালতে হাজির করা হচ্ছে। একটি দুর্নীতির মামলায় সোমবার তাকে আদালতে হাজির করার দিন ধার্য রয়েছে। এ জন্য শনিবার প্রদীপকে কক্সবাজার জেলা কারাগার থেকে চট্টগ্রাম কেন্দ্রীয় কারাগারে আনা হয়।

প্রদীপ কুমার দাশ (৪৮) চট্টগ্রামের বোয়ালখালী উপজেলার উত্তর সারোয়াতলী গ্রামের মৃত হরেন্দ্র লাল দাশের ছেলে।

গত ২৩ আগস্ট প্রদীপ ও তার স্ত্রী ‍চুমকি কারণের বিরুদ্ধে দুদকের চট্টগ্রাম জেলা সমন্বিত কার্যালয়-২ এর সহকারি পরিচালক মো. রিয়াজ উদ্দিন বাদী হয়ে একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলায় প্রদীপ কুমার দাশ ও চুমকি কারণের বিরুদ্ধে প্রায় চার কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ অর্জনের অভিযোগ করা হয়েছে। এর মধ্যে ৩ কোটি ৯৫ লাখ ৫ হাজার ৬৩৫ টাকা ‘ওসি প্রদীপ’ ঘুষ-দুর্নীতির মাধ্যমে অর্জন করেছেন বলে দুদক অভিযোগ এনেছে। আরও ১৩ লাখ ১৩ হাজার ১৭৫ টাকার সম্পদের তথ্য বিবরণীতে গোপন করার অভিযোগও আনা হয়েছে চুমকির বিরুদ্ধে।

প্রদীপ ঘুষ-দুর্নীতির মাধ্যমে সম্পদ অর্জন করে স্ত্রীর নামে হস্তান্তর ও স্থানান্তর করেছেন বলেও দুদকের অনুসন্ধান প্রতিবেদন এবং এজাহারে বলা হয়েছে।

ওই মামলায় তদন্তকারী কর্মকর্তা দুদকের সহকারী পরিচালক মো. রিয়াজ উদ্দিন গত ২৭ আগস্ট সুষ্ঠু তদন্তের স্বার্থে প্রদীপকে গ্রেফতার দেখানোর জন্য আদালতে আবেদন করেন। চট্টগ্রাম মহানগর দায়রা জজ শেখ আশফাকুল আলম আসামি প্রদীপের উপস্থিতিতে ১৪ সেপ্টেম্বর আবেদনের ওপর শুনানির সময় নির্ধারণ করেন।

গত ৩১ জুলাই রাতে কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়কের শামলাপুর চেকপোস্টে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান। ওই ঘটনায় সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস গত ৫ আগস্ট কক্সবাজারের একটি আদালতে হত্যা মামলা দায়ের করেন, সেখানে টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশ ও বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকত আলীসহ নয়জনকে আসামি করা হয়। মামলাটি তদন্ত করছে র‌্যাব।