কক্সবাজার জেলার উপজেলা ভিত্তিক প্রথম রেফারী কোর্স শেষ হয় টেকনাফে। এতে ৫৭ জন সাবেক-বর্তমান ফুটবলার কোর্সে অংশ গ্রহন করেন। তাদের হাতে কলমে ও প্র্যাকটিকাল ক্লাস করান ঢাকা থেকে আগত প্রশিক্ষক বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশনের ইন্সট্রাকটর তৈয়ব হাসান শামসুজ্জামান ও নাজমুল হক। এরপর বাংলাদেশ ফুটবল ফেডারেশন (বাফুফে) তৃতীয় শ্রেনীর উত্তীর্ণ রেফারী হিসেবে নাম ঘোষনা করেন। সবশেষ ১১ মার্চ (শুক্রবার) বিকাল ৪ টায় কক্সবাজার বীরশ্রেষ্ট রুহুল আমিন স্টেডিয়ামের সম্মেলন কক্ষে জেলা ক্রীড়া সংস্থার সহযোগিতায় টেকনাফ উপজেলা ক্রীড়া পরিষদের ব্যানারে সংবর্ধনার আয়োজন করা হয়। সংবর্ধনায় জেলার মরনোত্তর ৮ জন, সাবেক ১২ জন ও তৃতীয় শ্রেনীর রেফারীতে উন্নীত ৫৭ জনকে বিশেষ সম্মাননা জানানো হয়।

এতে প্রধান অতিথি ছিলেন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট জসিম উদ্দিন। টেকনাফ উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক জিয়াউর রহমান জিয়ার সভাপতিত্বেউপজেলা ক্রীড়া পরিষদের সহ-সভাপতি ও নতুন রেফারী কোর্স কো-অর্ডিনেটর জামাল সাদেক এর পরিচালনায় অনুষ্টানে বিশেষ অতিথি ছিলেন, কক্সবাজার জেলা রেফারী এসোসিয়েশন এর সহসভাপতি অধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন, জেলা ক্রীড়া সংস্থার কার্যনির্বাহী সদস্য এমআর মাহবুব, প্রভাষক জসিম উদ্দিন, বদরমোকাম স্পোর্টিং ক্লাবের সভাপতি আবদুল আল মাসুদ রুমেল, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সদস্য আলী রেজা তসলিম, ক্রীড়া লেখক সমিতির সভাপতি মাহবুবুর রহমান, জেলা রেফারী এসোসিয়েশন এর সাবেক সাধারণ সম্পাদক আবদুল হামিদ, জাতীয় রেফারী সাবেক কৃতি ফুটবলার ছৈয়দ করিম, এমপি সাইমুম সরওয়ার কমল এর ব্যক্তিগত সহকারী মিজানুর রহমান, টেকনাফ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয়ের ক্রীড়া শিক্ষক মুজিবুর রহমান খোকন, ব্যাংকার মনির প্রমূখ।

সংবর্ধনায় মরনোত্তর রেফারী-সাবেক রাষ্ট্রদূত ওসমান সরওয়ার আলম চৌধুরী, আলহাজ্ব নুরুল হুদা চৌধুরী, বদরুল আলম, শফিকুর রহমান চৌধুরী, মনোহরি বড়ুয়া, মরহুম মাষ্টার বদিউল আলম, আহমদ হোসাইন ও সাবেক কৃতি রেফারী বীর মুক্তিযোদ্ধা মনিরুল আলম চৌধুরী, অধ্যক্ষ জসিম উদ্দিন, নুরুল আলম ফরাজী, মোস্তফা আনোয়ার ইকবাল, জয়নাল আবেদিন, আবু বক্কর ছিদ্দিক, মনজুর আলম মজনু, সুবীর বড়ুয়া বুলু, সাইফুল হক আবু, হাবিব উল্লাহ চৌধুরী, হাকিম মিয়া ও জাফর আলমকে ক্রেস্ট দিয়ে সম্মাননা জানান।

সংবর্ধনায় আগত অতিথিরা বলেন, কক্সবাজারের ইতিহাসে এই প্রথম একঝাঁক তরুণ যারা রেফারি কোর্স সম্পন্ন করেছেন। প্রশিক্ষক ও ফুটবলারদের সমন্বয়ে টানা ৫ দিন টিউরেটিক্যাল ও প্রেক্টিক্যাল প্রশিক্ষণের মধ্য দিয়ে সমাপ্তি হয়।

অতিথিরা আরো বলেন, কক্সবাজারের ইতিহাসে এটি প্রথমবারের মত ফুটবল রেফারি কোর্স সম্পন্ন হয়। এই রেফারি কোর্সের মাধ্যমে কক্সবাজার জেলায় খেলাধুলার উন্নতি হবে এবং রেফারীজ আইন কানুন সম্পর্কে গ্রামে গঞ্জে বিস্তার লাভ করবে।

উল্লেখ্য, কক্সবাজার জেলার প্রথম ফুটবল রেফারী কোর্স উদ্বোধন হয় সীমান্ত উপজেলা টেকনাফে। উপজেলা ক্রীড়া সংস্থার তত্ত্বাবধানে ২০২১ সালের (১৬ অক্টোবর) সকাল ১০টায় হ্নীলা রঙ্গিখালী মাদ্রাসা মার্কেট হলরুমে প্রশিক্ষণ কোর্স শুরু হয়। এরপরদিন থেকে হ্নীলা বালিকা উচ্চ বিদ্যালয়ের হল রুমে থিউরেটিক্যাল ও ফুটবল মাঠে প্রেক্টিক্যাল ক্লাসের মধ্য দিয়ে সমাপ্তি হয়। রেফারী কোর্সে ৫৭ জন প্রশিক্ষণার্থী অংশ গ্রহণ করেন।

সংবর্ধনা অনুষ্টানের প্রধান অতিথি জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক জসিম উদ্দিন বলেন, টেকনাফে নতুন ফুটবল রেফারী কোর্স সম্পন্ন হওয়ায় এখানকার ক্রীড়া জগৎ আরেকধাপ এগিয়ে গেছে। প্রত্যন্ত অঞ্চল থেকে প্রশিক্ষণের মাধ্যমে দক্ষ রেফারী জেলা, বিভাগ ও জাতীয় পর্যায়ে ভূমিকা রাখবে।

সেই সঙ্গে টেকনাফের মতো এলাকায় নতুন ফুটবল রেফারী রেফারী কোর্স করায় সংশ্লিষ্টদের ধন্যবাদ জানান তিনি। ৫৭ জন রেফারী কক্সবাজারের জন্য ইতিহাস। খেলাধুলার উন্নয়নে যারা কাজ করবে কক্সবাজার জেলা ক্রীড়া সংস্থা তাদের পাশে থাকবে সবসময়। তিনি সনদপ্রাপ্তদের পেশাদারিত্ব বজায় রেখে রেফারীর কার্যক্রম পরিচালনার জন্য অনুরোধ জানান।

অনুষ্টানে নতুন রেফারী ও আয়োজকদের পক্ষ থেকে আগত অতিথিদের ক্রেস্ট ও উপহার সামগ্রী বিতরণ করা হয়।