প্রাথমিক বিদ্যালয়ের খুদে শিক্ষার্থীদের করোনা টিকা দেওয়ার প্রস্তুতি চলছে বলে জানিয়েছেন স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণমন্ত্রী জাহিদ মালেক। তিনি বলেছেন, বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনুমোদন পেলেই এই কার্যক্রম শুরু হবে।

আজ সোমবার দুপুরে স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের টিকাসংক্রান্ত জরুরি বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে এ কথা বলেন মন্ত্রী।

স্বাস্থ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা শিক্ষা মন্ত্রণালয়ের সঙ্গে এ বিষয়ে আলোচনা করেছি। টিকা দেওয়ার বিষয়ে আমরা প্রস্তুতি নিয়ে রাখছি। শিক্ষার্থীদের টিকাকেন্দ্রের তালিকা তৈরি করতে বলেছি।’

ইতোমধ্যে ১২ বছরের ঊর্ধ্বে যেসব শিক্ষার্থী আছে, তাদের টিকা দেওয়া হয়েছে জানিয়ে জাহিদ মালেক বলেন, ‘এবার আমরা ১২ বছরের নিচে এবং পাঁচ বছরের ঊর্ধ্বে শিক্ষার্থীদের টিকা দেব। শিক্ষা মন্ত্রণালয় এসব শিক্ষার্থীর তালিকা তৈরি করছে।’

গত ১৭ থেকে ২৬ ফেব্রুয়ারি পর্যন্ত ৯ দিনের গণটিকা কর্মসূচিতে তিন কোটির বেশি টিকা দেওয়া হয়েছে বলে জানান স্বাস্থ্যমন্ত্রী। তার হিসাবে এ নিয়ে দেশের ৭৫ শতাংশ মানুষকে করোনার টিকা দেওয়া হয়েছে। সব মিলিয়ে এখন পর্যন্ত ২২ কোটি টিকা দেওয়া হয়েছে।

আগামী ২৮ মার্চ থেকে প্রথম ডোজ নেওয়াদের দ্বিতীয় ডোজ টিকা দেওয়া হবে জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, ‘এ মাসেই দুই কোটি ২৫ লাখ দ্বিতীয় ডোজ টিকা দেওয়া হবে। এখন পর্যন্ত প্রায় ৪০ হাজার কোটি টাকা টিকা কেনা ও প্রয়োগের পেছনে ব্যয় হয়েছে। আমাদের কিছু টিকা বাড়তি আছে। এ টিকা আমরা বিভিন্ন দেশকে উপহার হিসেবে দিয়ে দেব।’