বিশ্বে গেল ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে রেকর্ড সংখ্যক মৃত্যু হয়েছে। একদিনে প্রায় ৯ হাজার মানুষ প্রাণ হারিয়েছেন। একই সময়ে আরও সোয়া ৩ লাখের বেশি মানুষ নতুন করে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন। এতে মোট আক্রান্তের সংখ্যা ৩ কোটি ৪৫ লাখ ছাড়িয়ে গেছে, মৃত্যু হয়েছে ১০ লাখের বেশি। এদিকে বিশ্বে ২শ’র বেশি সম্ভাব্য করোনা টিকা নিয়ে কাজ করছেন গবেষকরা। এর মধ্যে ‘সবচেয়ে কার্যকর টিকাটি’ নির্বাচন করতে একটি গ্লোবাল ল্যাবরেটরি নেটওয়ার্ক গঠনের উদ্যোগ নিয়েছে বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় অলাভজনক স্বাস্থ্যবিষয়ক সংস্থা কোয়ালিশন ফর এপিডেমিক প্রিপেয়ার্ডনেস ইনোভেশনস (সিইপিআই)। প্রাথমিকভাবে বাংলাদেশ, কানাডা, ব্রিটেন, ইতালি, নেদারল্যান্ডস ও ভারতের ছয়টি ল্যাব এতে কাজ করবে। খবর বিবিসি রয়টার্স ও এএফপিসহ বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমের।

বাংলাদেশ সময় শুক্রবার সন্ধ্যা ৬টা পর্যন্ত ওয়ার্ল্ডওমিটারসের তথ্য অনুযায়ী বিশ্বে করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ কোটি ৪৫ লাখ ৩৪ হাজার ১৩০ জন। মারা গেছেন ১০ লাখ ২৮ হাজার ৫৪০ জন। অবস্থা আশঙ্কাজনক ৬৬ হাজার ৯২ জনের। সুস্থ হয়েছেন ২ কোটি ৫৭ লাখ ২ হাজার ২৮৪ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় বিশ্বে নতুন করে আক্রান্ত হয়েছেন ৩ লাখ ১৯ হাজার ৬৫৭। একই সময়ে বিশ্বে রেকর্ড ৮ হাজার ৯৩৪ জনের মৃত্যু হয়েছে। এর আগে ১৭ এপ্রিল ৮ হাজার ৫১৩ জনের মৃত্যু হয়েছিল।

বিশ্ব তালিকায় শীর্ষে থাকা মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রে আক্রান্ত ৭৪ লাখ ৯৭ হাজার ২৫৬ জন। দেশটিতে মারা গেছেন ২ লাখ ১২ হাজার ৬৫৩ জন। তালিকায় দ্বিতীয় স্থানে থাকা ভারতে রোগী ৬৩ লাখ ৯৭ হাজার ৮৯৬, মৃত্যু হয়েছে ৯৯ হাজার ৮৩৩ জনের। বিশ্বে তৃতীয় স্থানে থাকা ব্রাজিলে আক্রান্ত ৪৮ লাখ ৪৯ হাজার ২০৯, মারা গেছেন ১ লাখ ৪৪ হাজার ৭৭৬ জন। চতুর্থ স্থানে রাশিয়ায় রোগীর সংখ্যা ১১ লাখ ৯৪ হাজার ৬৭৩, মারা গেছেন ২১ হাজার ৭৭ জন।

রয়টার্সের প্রতিবেদনে বলা হয়, ইউরোপ, এশিয়া ও উত্তর আমেরিকা পর্যন্ত বিস্তৃত সিইপিআই নেটওয়ার্কে থাকা ল্যাবগুলোতে পরীক্ষা করা ভ্যাকসিনের নমুনা বিশ্লেষণকে এক জায়গায় নিয়ে এসে তুলনা করা হবে। সিইপিআইর ভ্যাকসিন আরঅ্যান্ডডি বিভাগের ডিরেক্টর মেলানিয়া সাভিল বলেন, একটি ভ্যাকসিনের সঙ্গে অন্যটির তুলনা করে দেখার চিন্তা থেকেই এ ধারণাটি এসেছে। ভিন্ন ভিন্ন ফলাফল যাতে না আসে, সেই ঝুঁকি কমাতে করোনার সম্ভাব্য ভ্যাকসিনগুলোর প্রাথমিক ট্রায়ালের নমুনা এক জায়গায় আনা হবে। ফলে, সব ট্রায়াল একই ছাদের নিচে পর্যালোচনা করা যাবে।

সাভিল আরও বলেন, যখন কোনো নতুন রোগের ভ্যাকসিন তৈরি শুরু হয়, তখন একেকটি সংস্থা নিজেদের মতো করে তা তৈরির চেষ্টায় থাকে। তারা আলাদা-আলাদা প্রটোকলে কাজ করে। তাদের মধ্যে সহযোগিতা থাকলে, কেন্দ্রীয় ল্যাব থাকলে আমরা সহজে ভ্যাকসিনগুলো মূল্যায়ন করতে পারব। বুঝতে পারব কোনটা সবচেয়ে বেশি কার্যকর।

ইউরোপে অনুমোদন পেতে যাচ্ছে অক্সফোর্ডের টিকা : ইউরোপীয় ওষুধ নিয়ন্ত্রক সংস্থা (ইএমএ) অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটি ও ফার্মা জায়ান্ট অ্যাস্ট্রাজেনেকার করোনাভাইরাসের সম্ভাব্য টিকার ত্বরিত পর্যালোচনা (রোলিং রিভিউ) শুরু করেছে। এর ফলে, অঞ্চলটিতে প্রথম অনুমোদন পাওয়া ভ্যাকসিন হতে পারে এটি। সাধারণত স্বাস্থ্যজনিত জরুরি পরিস্থিতিতে এমন পদক্ষেপ নেয়া হয়। এর মধ্যে দিয়ে কোনো ভ্যাকসিন বা ওষুধ উদ্ভাবনের প্রক্রিয়ায় থাকলেও ক্লিনিক্যাল ট্রায়ালের তথ্য পর্যালোচনা করে থাকে নিয়ন্ত্রক সংস্থা। এর ফলে অনুমোদন প্রক্রিয়া দ্রুততর হয়।

অ্যামাজনের ২০ হাজার কর্মী আক্রান্ত : বিশ্বখ্যাত ই-কমার্স প্রতিষ্ঠান অ্যামাজনের ১৯ হাজার ৮১৬ কর্মী করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন। বৃহস্পতিবার প্রতিষ্ঠানটির পক্ষ থেকে এ তথ্য জানানো হয়েছে। বেশ কিছুদিন থেকেই অ্যামাজনের কর্মীরা কোভিড-১৯ নিয়ে তাদের নিরাপত্তার বিষয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করছিলেন। তারা অভিযোগ করেন, কর্মীদের করোনায় আক্রান্ত হওয়ার বিষয়ে তাদের সঠিক তথ্য দেয়া হচ্ছে না। এর মধ্যেই প্রতিষ্ঠানটি এ বিষয়ে বিবৃতি দিল।

ব্রিটিশ প্রধানমন্ত্রীর বাবার দুঃখ প্রকাশ : করোনা বিষয়ে ব্রিটিশ সরকারের বিধিনিষেধ লঙ্ঘনের দায়ে অভিযুক্ত প্রধানমন্ত্রী বরিস জনসনের বাবা স্ট্যানলে জনসন দুঃখ প্রকাশ করেছেন। ফলে তাকে বিধি ভঙ্গের দায়ে জরিমানা করা হচ্ছে না। তিনি মাস্ক না পরেই কেনাকাটা করছিলেন। এজন্য তাকে ২০০ পাউন্ড জরিমানা করার কথা। কিন্তু তিনি প্রথমবার এ বিধি ভঙ্গ করেছেন এবং দুঃখ প্রকাশ করেছেন বলে পুলিশ তাকে ছাড় দিয়েছে।

সূত্র – যুগান্তর |