একে তো ইতিহাস গড়ার পালা, তার উপর দর্শকদের মুহুর্মুহু করতালি; আজমেরি হক বাঁধনের আবেগের বাঁধ ভেঙে গেল।

কান চলচ্চিত্র উৎসবে ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ প্রদর্শনের পর হলভর্তি দর্শকের করতালিতে অভিভূত হয়ে আনন্দঅশ্রুতে ভাসলেন চলচ্চিত্রটির কেন্দ্রীয় চরিত্রের অভিনেত্রী আজমেরি হক বাঁধন।

তার পাশে তখন ছিলেন ছবির নির্মাতা আব্দুল্লাহ মোহাম্মদ সাদসহ অন্য কলাকুশলীরা।

দক্ষিণ ফ্রান্সের কান শহরে মঙ্গলবার এ উৎসবের ৭৪তম আসর শুরুর পরদিন বুধবার বাংলাদেশ সময় সোয়া ৩টায় পালে দে ফেস্টিভাল ভবনের দুবুসি থিয়েটারে ‘রেহানা মরিয়ম নূর’র ওয়ার্ল্ড প্রিমিয়ার হয়।

এই আসরের ‘আঁ সেত্রাঁ রিগা’ বিভাগে নির্বাচিত হয়েছে চলচ্চিত্রটি; বাংলাদেশ থেকে এই প্রথম কোনো সিনেমা কান চলচ্চিত্র উৎসবে অফিসিয়াল সিলেকশনে জায়গা পেল।

ছবিটি প্রদর্শন শেষে হলভর্তি দর্শকরা মুহুর্মুহু করতালিতে ছবির নির্মাতা, অভিনয়শিল্পী ও কলাকুশলীদের ‍অভিবাদন জানাতে থাকেন।

এ সময় হলে সাদ ও বাঁধনের সঙ্গে প্রযোজক জেরেমি ‍চুয়া, নির্বাহী প্রযোজক এহসানুল হক বাবু, চিত্রগ্রাহক তুহিন তামিজুল, প্রডাকশন ডিজাইনার আলী আফজাল উজ্জ্বল, কালারিস্ট চিন্ময় রায় ও শব্দ প্রকৌশলী শৈব তালুকদার ছিলেন।

বাঁধন সাংবাদিকদের বলেন, “সেই সময়ের অনভূতি আসলে বলে বোঝাতে পারব না। অনেকেই এসে জড়িয়ে ধরে অভিবাদন জানিয়েছে। আমি অভিভূত।”

রেহানা মরিয়ম নূর নামে মেডিকেল কলেজের একজন সহকারী অধ্যাপকের জীবন সংগ্রামের গল্পে নির্মিত ছবির প্রধান চরিত্রে অভিনয় করেছেন বাঁধন।

ছবিতে বাঁধন ছাড়াও অভিনয় করেছেন আফিয়া জাহিন জাইমা, কাজী সামি হাসান, আফিয়া তাবাসসুম বর্ন, ইয়াছির আল হক, সাবেরী আলম।

কান চলচ্চিত্র উৎসবে বুধবার বাংলাদেশি চলচ্চিত্র রেহানা মরিয়ম নূর দেখতে দর্শকদের এই লাইন। ছবি: যুবায়ের আহমেদ (ডয়চে ভেলে বাংলা)

কান চলচ্চিত্র উৎসবে বুধবার বাংলাদেশি চলচ্চিত্র রেহানা মরিয়ম নূর দেখতে দর্শকদের এই লাইন। ছবি: যুবায়ের আহমেদ (ডয়চে ভেলে বাংলা)

‘আঁ সেত্রাঁ রিগা’ বিভাগে বিশ্বের নানা দেশের ২০টি চলচ্চিত্রের সঙ্গে প্রতিযোগিতায় অংশ নেবে ‘রেহানা মরিয়ম নূর’। এই বিভাগের পুরস্কার ঘোষণা করা হবে ১৬ জুলাই।

কান চলচ্চিত্র উৎসবে বাংলাদেশের ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ চলচ্চিত্রের কলাকুশলীরা। ছবি: যুবায়ের আহমেদ (ডয়চে ভেলে বাংলা)

কান চলচ্চিত্র উৎসবে বাংলাদেশের ‘রেহানা মরিয়ম নূর’ চলচ্চিত্রের কলাকুশলীরা। ছবি: যুবায়ের আহমেদ (ডয়চে ভেলে বাংলা)

১৭ জুলাই উৎসবের পর্দা নামবে; ১৮ জুলাই সাদ-বাঁধনদের দেশে ফেরার কথা রয়েছে।