কক্সবাজারের চকরিয়া উপজেলার পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নের সেকান্দরপাড়ায় তুচ্ছ বিষয় নিয়ে বখাটের লাথিতে অন্তঃসত্ত্বা গৃহবধূ কুলছুমা বেগম (২২) এর ২ মাসের সন্তান নষ্ট হয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। গত শনিবার (২৪ অক্টোবর) বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। আজ সোমবার (২৬ অক্টোবর) বিকালে থানায় এজাহার দিতে গেলে বিষয়টি জানাজানি হয়। কুলছুমা ওই এলাকার মো. রিয়াজ উদ্দিনের স্ত্রী।

অভিযোগ রয়েছে, এসময় বাধা দিতে গেলে কুলছুমার মা মনোয়ারা বেগম (৪৫), মেয়ে রিক্তা মনি (১৮) ও মারিয়া সুলতানা (১৮) কে পিটিয়ে গুরুতর জখম করা হয়। আহতরা সবাই চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে চিকিৎসাধীন রয়েছেন।

জানা গেছে, গৃহবধূ কুলছুমা বেগম বাবার বাড়ির পাশে ভাড়া বাড়িতে থাকেন। তিনি উঠানে কাপড় শুকাতে দিলে তার একটি ব্লাউজ হারিয়ে যায়। এ ব্যাপারে বাড়ির পার্শ্ববর্তী রুহুল কাদেরের স্ত্রীকে জিজ্ঞাসা করলে তার তিন ছেলে আনোয়ারুল আকবর, আনোয়ারুল সাদেক ও সোহরাব হোসেন অতর্কিতে এসে কুলছুমাকে মারধর করে। মারধরের এক পর্যায়ে কুলছুমার পেটে লাথি মারে তারা। এসময় বাধা দিতে গেলে তার মা ও দুই বোনকে ও পেটায়।

পরে স্থানীয় লোকজন তাদের উদ্ধার করে চকরিয়া উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করেন। ভর্তি করার পর কুলছুমার ব্যাথা শুরু হলে তাকে আল্ট্রাসনোগ্রাফি করা হয়। রিপোর্টে বাচ্চা নষ্টের বিষয়টি উঠে আসে।

পূর্ব বড় ভেওলা ইউনিয়নের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য বেলাল উদ্দিন বলেন, আনোয়ারুল আকবর, আনোয়ারুল সাদেক ও সোহরাব হোসেন তিনজনই বখাটে।