জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানকে নিয়ে নিজের লেখা ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জনক আমার-নেতা আমার’ বইয়ের মোড়ক উন্মোচন করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার (১ ফেব্রুয়ারি) তার জাতীয় সংসদ ভবনস্থ কার্যালয়ে তিনি বইটির মোড়ক উন্মোচন করেন।

বইটিতে পাঠক বঙ্গবন্ধুর জীবন কথা, সংগ্রাম গাথার সমান্তরালে খুঁজে পাবেন গোটা বাঙালি জাতির উন্মেষ কথা ও বিজয়গাথা। পাশাপাশি ১৫ আগস্ট ১৯৭৫-এর কালো অধ্যায়, হত্যাকাণ্ডের বিচারের মাধ্যমে বাঙালির কলঙ্কমোচন এবং শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশের ঘুরে দাঁড়ানোর গল্প খুঁজে পাওয়া যাবে এতে।

শেখ হাসিনা শুধু বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের জ্যেষ্ঠ কন্যা নন, তার যোগ্য উত্তরসূরিও বটে। ১৯৭৫ সালের ১৫ আগস্ট নৃশংস হত্যাকাণ্ডে সপরিবারে বঙ্গবন্ধুর শাহাদাতবরণের সময় বিদেশে অবস্থানের কারণে বেঁচে যান দুই সন্তান শেখ হাসিনা ও শেখ রেহানা। ১৯৮১ সালে স্বদেশ প্রত্যাবর্তন করে বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের অসাম্প্রদায়িক শোষণমুক্ত গণতান্ত্রিক সোনার বাংলা প্রতিষ্ঠার সংগ্রামে তিনি এক ক্লান্তিহীন যোদ্ধা। চারবার প্রধানমন্ত্রী নির্বাচিত হওয়ার পাশাপাশি শেখ হাসিনা আজ এক বিশ্বনেতার নাম। শান্তি উন্নয়ন ও গণতন্ত্রের অভিযাত্রায় অনন্য অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ নানা পুরস্কার ও সম্মাননায় ভূষিত শেখ হাসিনা একজন অসাধারণ লেখকও।

১৯৮৯ সালে তার প্রথম বই ‘ওরা টোকাই কেন’ প্রকাশিত হয়। এখন পর্যন্ত তার বেশ কিছু মৌলিক ও সম্পাদিত বই এবং রচনাসমগ্র প্রকাশিত হয়েছে। নিজের বইয়ের পাশাপাশি তিনি লিখেছেন বঙ্গবন্ধুর বই এবং বঙ্গবন্ধু সম্পর্কিত বইয়ের বিশদ ভূমিকা। চারুলিপি প্রকাশন প্রথমবারের মতো বঙ্গবন্ধু, তার পরিবার এবং এ সম্পর্কিত প্রাসঙ্গিক শেখ হাসিনার সমুদয় রচনা একত্রিত রূপ ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জনক আমার-নেতা আমার’ শিরোনামে প্রকাশ করলো।

বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবর্ষে ‘বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, জনক আমার, নেতা আমার’ বইটি প্রত্যেক বাঙালি পাঠকের জন্যই এক অনন্য উপহার। কেননা, বঙ্গবন্ধু ও বাংলাদেশ এক এবং অভিন্ন।