অবসরপ্রাপ্ত সেনা কর্মকর্তা সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান হত্যা মামলায় গ্রেপ্তার টেকনাফের সাবেক ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে চার দফায় ১৫ দিনের জিজ্ঞাসাবাদ শেষে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

চতুর্থ দফায় এক দিনের রিমান্ড শেষে মঙ্গলবার বিকালে প্রদীপকে কক্সবাজারের জ্যেষ্ঠ বিচারিক হাকিম তামান্না ফারাহর আদালতে হাজির করেন মামলার তদন্ত কর্মকর্তা র‍্যাবের এএসপি খাইরুল ইসলাম।

পরে আদালত তাকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন জানিয়ে তদন্ত কর্মকর্তা খাইরুল বলেন, “ওসি প্রদীপকে গত ১৮ অগাস্ট থেকে মঙ্গলবার পর্যন্ত পর পর চার দফায় টানা ১৫ দিন রিমান্ডে নিয়ে জিজ্ঞাসাবাদ করা হয়।

“রিমান্ড শেষে তাকে আদালতে আনার পর নতুন করে কোনো রিমান্ড ও স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি নেওয়ার জন্য আবেদন করা হয়নি। এতে আদালত আসামিকে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।”

আদালতে হাজির করার আগে বিকাল পৌনে ৪টার দিকে প্রদীপকে স্বাস্থ্য পরীক্ষার জন্য কক্সবাজার সদর হাসপাতালে নেওয়া হয়। এরপর সোয়া ৪টায় তাকে আদালতে আনা হয়।

কক্সবাজারের টেকনাফের কাছে বাহারছড়া চেকপোস্টে গত ৩১ জুলাই রাতে পুলিশের গুলিতে নিহত হন সেনাবাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত মেজর সিনহা মোহাম্মদ রাশেদ খান।

ওই ঘটনার পর সিনহার বোন শারমিন শাহরিয়া ফেরদৌস গত ৫ অগাস্ট কক্সবাজারের হাকিম আদালতে ৯ জনের বিরুদ্ধে মামলা করেন। সেখানে বাহারছড়া তদন্ত কেন্দ্রের পরিদর্শক লিয়াকত আলিকে ১ নম্বর এবং টেকনাফ থানার ওসি প্রদীপ কুমার দাশকে ২ নম্বর আসামি করা হয়।

মামলা হওয়ার পর ওসি প্রদীপসহ সাত পুলিশ সদস্য ৬ অগাস্ট আদালতে আত্মসমর্পণ করেন। এরপর প্রদীপকে সরকারি চাকরি থেকে সাময়িক বরখাস্ত করে স্বরাষ্ট্র মন্ত্রণালয়।

এই মামলায় গত ১৮ অগাস্ট প্রথম দফায় ৭ দিন, ২৪ অগাস্ট দ্বিতীয় দফায় ৪ দিন, ২৮ অগাস্ট তৃতীয় দফায় ৩ দিন এবং সর্বশেষ সোমবার চতুর্থ দফায় এক দিনের জন্য হেফাজতে নিয়ে প্রদীপকে জিজ্ঞাসাবাদ করে র‍্যাব।

বিচারক কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেওয়ার পর প্রদীপকে কিছুক্ষণের জন্য কোর্ট হাজতে নিয়ে রাখা হয়। পরে  প্রিজন ভ্যানে করে তাকে কারাগারে নেওয়া হয় বলে কক্সবাজার আদালত পুলিশের পরিদর্শক প্রদীপ কুমার দাশ জানিয়েছেন।