সীমান্ত উপজেলা টেকনাফের ইউপি নির্বাচনে আট দিনে মুখর হয়ে উঠা প্রচারণা আজ শনিবার রাত ১২টায় শেষ হচ্ছে। বন্ধ হয়ে যাচ্ছে প্রচারণায় বৈচিত্র্যময় সব আয়োজন।

শেষ মুহুর্তের প্রচারণায় বাসা,বাড়িতে পায়ে হেঁটে কর্মীদের সাথে নিয়ে ভোটারদের মন জয় করার চেষ্টা করছেন চেয়ারম্যান, মেম্বার ও সংরক্ষিত মহিলা মেম্বার প্রার্থীরা। ভেটের জন্য রাত দিন ভোটারদের দ্বারে দ্বারে গিয়ে দলীয় প্রার্থীর পক্ষে ভোট চাইছেন সমর্থকরা। এসময় ভোটারদের মন জয় করতে দেওয়া হচ্ছে নানা প্রতিশ্রুতি।

পাড়ার অলিগলি, গুরুত্বপূর্ণ স্থানে, সড়কে, মোড়ে, প্রার্থীদের ছবি সম্বলিত পোস্টার শোভা পাচ্ছে। টানানো হয়েছে ব্যানারও। গান বাজনার মাধ্যমে প্রচারণায় ব্যস্ত সময় পার করছেন প্রার্থীর সমর্থকরা।

শনিবার সাবরাং ইউনিয়নের শাহপরীর দ্বীপ এলাকা ঘুরে দেখা গেছে এ চিত্র।

আগামী ২০ সেপ্টেম্বর অনুষ্ঠিত হবে টেকনাফের ৬ ইউনিয়নের মধ্যে ৪ ইউনিয়নে ভোটগ্রহণ।

ভোটারদের সাথে কথা বলে জানা যায়, ভোটের সুষ্ঠু ও শান্তিপূর্ণ পরিবেশ চান এবারের ভোটাররা। যাতে সবাই ভোট কেন্দ্রে দিয়ে নিজের পছন্দের প্রার্থীকে ভোট দিতে পারেন।

উপজেলা রিটার্নিং কর্মকর্তা বেদারুল ইসলাম বলেন, টেকনাফের ইউপি নির্বাচন সুষ্ঠু, অবাধ, গ্রহণযোগ্য পরিবেশে সম্পন্ন করতে প্রশাসনের পক্ষ থেকে প্রয়োজনীয় প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি প্রচার-প্রচারণার সময় প্রার্থীরা নির্বাচনী আচরণবিধি লঙ্ঘিত হচ্ছে কি না, তাও কঠোরভাবে নজরদারি করা হচ্ছে বলে জানান তিনি।

হোয়াইক্যং এলাকার স্থানীয় বাসিন্দা আব্বাস আলী বলেন, যোগ্য ও সৎ প্রার্থীকেই আমরা ভোট দেবো। তাকেই আমরা নির্বাচিত করবো যে সুখে দুঃখে মানুষের পাশে থাকবেন।

হ্নীলা ইউনিয়নের নৌকার প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান রাশেদ মাহমুদ আলী প্রবাল নিউজকে বলেন, যদি জনগণ আমাকে যোগ্য মনে করে তবে তারা আমাকে সমর্থন দেবেন। পুনরায় নির্বাচিত হয়ে জনগণের সেবা করাটাই আমার উদ্দেশ্য।

হ্নীলা ইউনিয়নের স্বতন্র প্রার্থী আলী হোসেন শোভন বলেন, সুষ্ট নির্বাচন হলে, জনগণ ভোট দেওয়ার সুযোগ পেলে হ্নীলা ইউপি নির্বাচনে আনারসই জয়ী হবে।  প্রচার ও জনসংযোগে যেখানেই যাচ্ছেন সেখানেই জনগণের ব্যাপক সাড়া পাচ্ছেন বলে উল্লেখ করেন এ প্রার্থী।