টেকনাফে ট্রাফিক পুলিশের নিয়মিত অভিযান হিসাবে যানবাহন চালকদের বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স ও কাগজপত্র চেক করাসহ বিভিন্ন অপরাধের জন্য প্রসিকিউশন দেয়া এবং জনসচেতনতা ও দিকনির্দেশনামূলক অভিযান অব্যাহত রয়েছে।

লাইসেন্সবিহীন ও অবৈধ যানবাহণগুলো বেপরোয়া হয়ে উঠেছে। অনেকেই মাদক পাচার কাজে মোটরসাইল ব্যবহার করছে। ফলে মাদক পাচার রোধসহ কাগজপত্রবিহীন অবৈধ যানবাহণ ও মোটরসাইকেলের বিরুদ্ধে টেকনাফ ট্রাফিক সার্জেন্টের নেতৃত্বে সাঁড়াশি অভিযান অব্যাহত রেখেছে।

সরেজমিনে দেখা যায়, কক্সবাজার-টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়ক ও পৌরশহরের গুরুত্বপূর্ন মোড়ে পুলিশ অবৈধ যানবাহণ ও মোটর সাইকেলের কাগজপত্রবিহীন গাড়ি পর্যবেক্ষন করছে। এসময় যেসব যানবাহণ ও মোটরসাইকেলের কোন কাগজপত্র পাওয়া যায়নি, সেগুলো আটক এবং প্রয়োজনীয় কাগজপত্র, ড্রাইভিং লাইসেন্স ও হেলমেট না থাকা চালকদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা নিচ্ছে।

ট্রাফিক পুলিশ সূত্রে জানা যায়, টেকনাফে দিন দিন দুর্ঘটনার ঝুঁকি বাড়ছে। বাড়ছে যানজটও।
শনিবার দুপুর থেকে সন্ধ্যা পর্যন্ত টেকনাফ মেরিন ড্রাইভ সড়ক ও পৌর শহরের বিভিন্ন মোড়ে টেকনাফ ট্রাফিক জোনের ইন্সপেক্টর ফারুক আল মামুন ভুইয়া’র নেতৃত্বে ট্রাফিক পুলিশের একটি টিম অভিযান পরিচালনা করেন। এসময় আইন অমান্য করায় বেশ কয়েকটি যানবাহণকে সতর্ক করা হয়েছে।

এসব তথ্য নিশ্চিত করে টেকনাফ ট্রাফিক জোনের ইন্সপেক্টর ফারুক আল মামুন ভুইয়া বলেন,মেরিন ড্রাইভ সড়ক,টেকনাফ পৌর শহরের যানবাহন চালকদের বৈধ ড্রাইভিং লাইসেন্স ও কাগজপত্র চেকিং করা হচ্ছে। বেপরোয়া ও প্রতিযোগিতা মুলক গাড়ী চালাবেন না একটি দুর্ঘটনা সারা জীবনের কান্না। মালিক ভাইয়েরা বৈধ লাইসেন্স ছাড়া চালক নিয়োগ দিবেন না, প্রয়োজনে ট্রাফিক পুলিশের সহায়তা নিবেন।

ট্রাফিক আইন মেনে চলতে মাইকিং করে জনসচেতনতা বাড়ানো হচ্ছে এবং ভবিষ্যতেও এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি।