করোনার ডেল্টা ধরনের দাপটে এখন অস্থির গোটা বিশ্ব। টিকাকরণ শুরুর পর দৈনিক সংক্রমণের হিসাব কমতে থাকলেও, ডেল্টার তাণ্ডবে সেটি আবারো বাড়তে শুরু করেছে। এমন পরিস্থিতি বিশ্বে দৈনিক সংক্রমণের হিসাবে শীর্ষে দশে চলে এসেছে বাংলাদেশ।
বিশ্বজুড়ে করোনা মহামারী পরিস্থিতির হিসাব রাখা পোর্টাল ওয়ার্ল্ডও-মিটারের মঙ্গলবার (২০ জুলাই) দুপুর দেড়টা পর্যন্ত আপডেট করা তথ্যে দেখা গেছে এই চিত্র। এই মুহূর্তে বিশ্বে সংক্রমণের শীর্ষ রয়েছে যুক্তরাজ্য। আর দ্বিতীয় ও তৃতীয় স্থানে রয়েছে ইন্দোনেশিয়া ও ভারত। বাংলাদেশ রয়েছে দশে।
বাংলাদেশের স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সবশেষ হিসাবে, সোমবার ১৩ হাজার ৩২১ জনের নতুন করে করোনায় সংক্রমিত হবার খবর দেয়। একই সময়ে যুক্তরাজ্যে আক্রান্তের সংখ্যা ছিলো ৩৯ হাজার ৯৫০। ভারতে ২৯ হাজার ৪২৪ জন। আর ইন্দোনেশিয়াতে ৩৪ হাজার ২৫৭ জন।
করোনা সংক্রমণের শীর্ষ দশে থাকা অন্যান্য দেশগুলো হলো, ইরান, রাশিয়া, যুক্তরাষ্ট্র, স্পেন, কলম্বিয়া ও ব্রাজিল। আর, এশিয়াতে এই মুহূর্তে দৈনিক সংক্রমণের শীর্ষে আছে ইন্দোনেশিয়া। এরপর রয়েছে ভারত, ইরান, বাংলাদেশ, থাইল্যান্ড, মালয়েশিয়া, ইরাক, তুরস্ক, ফিলিপাইন ও কাজাখিস্তান।
করোনার দৈনিক সংক্রমণের হিসাবেই নয়, দৈনিক মৃত্যুর হিসাবেও বিশ্বের শীর্ষ দশে রয়েছে রয়েছে বাংলাদেশ। এই মুহূর্তে সেই তালিকার আটে রয়েছে বাংলাদেশ। দৈনিক মৃত্যুর তালিকায় শীর্ষে রয়েছে ইন্দোনেশিয়া, রাশিয়া, ব্রাজিল কলম্বিয়া, আর্জেন্টিনা, ভারত ও মিয়ানমার।
দৈনিক মৃত্যুতে এশিয়ার দেশগুলোর মধ্যে বাংলাদেশ চারে আছে। শীর্ষে রয়েছে যথারীতি ইন্দোনেশিয়া। দেশটিতে সবশেষ হিসাবে করোনা আক্রান্ত হয়ে মারা গেছে এক হাজার ৩৩৮ জন। আর দ্বিতীয় স্থানে থাকা ভারতে মারা গেছে ৩৭২ জন এবং মিয়ানমারে ২৮১ জন।
সপ্তাহের গতিপ্রকৃতির হিসাবে বাংলাদেশে এখনো সংক্রমণ ঊর্ধ্বমুখী। গত সাত দিনে দেশে করোনা আক্রান্ত হয়েছেন ৮২ হাজার ৩৫৩ জন। তার আগের সাত দিনে এই সংখ্যা ছিলো ৮০ হাজার ৭৬ জন। অর্থাৎ, এক সপ্তাহের ব্যবধানে দৈনিক সংক্রমণ চার শতাংশ বেড়েছে।
তবে প্রতিবেশী ভারতে দৈনিক সংক্রমণ সপ্তাহের বিচারের ছয় শতাংশ কমেছে। এছাড়া এশিয়ার বেশিরভাগ দেশেই সংক্রমণের ছড়িয়ে পরার গতি অনেক বেশি। বিশেষ করে শুরু থেকে করোনা ভাইরাসকে নিয়ন্ত্রণে রাখা এশিয়ার দেশগুলোতে নতুন করে চোখ রাঙাচ্ছে করোনা। সূত্র : একাত্তর টিভি