পাকিস্তানজুড়ে ভয়াবহ বিদ্যুৎ সঙ্কট সৃষ্টি হয়েছে। সে দেশের সংবাদমাধ্যম ডন জানাচ্ছে, দেশটির শহরের দিকে ৬ থেকে ১০ ঘণ্টা পর্যন্ত লোডশেডিং হচ্ছে। গ্রামাঞ্চলে বিদ্যুৎ থাকছে না ৮ থেকে ১৬ ঘণ্টা পর্যন্ত।

দেশটির বিদ্যুৎ বিভাগ জানিয়েছে, প্রতিদিন বিদ্যুতের মোট চাহিদার চেয়ে ৬ থেকে ৭ হাজার ইউনিটের ঘাটতি থাকছে বলে লোডশেডিং হচ্ছে। একই সঙ্গে, তীব্র গরমে নাজেহাল দশা নাগরিকদের। স্থানীয় আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, তাপপ্রবাহের কবলে পড়তে পারে পাকিস্তান। এ অবস্থায় ভয়াবহ বিদ্যুৎ সঙ্কট মানুষের দুর্ভোগ আরও কয়েকগুণ বাড়িয়ে দিচ্ছে। পাকিস্তানের বিদ্যুৎ বিভাগ অবশ্য বলছে, জ্বালানির সঙ্কট সাময়িক। খুব তাড়াতাড়ি পরিস্থিতি সামাল দেওয়া সম্ভব হবে।

লাহোরের এক বাসিন্দা ডনকে জানিয়েছেন, ২৭ এপ্রিল থেকে ৭ ঘণ্টা বা তার বেশি সময় ধরে লোডশেডিং হচ্ছে। ৬ ঘণ্টা দিনে আর ২ ঘণ্টা রাতে। খানেওয়াল অঞ্চল থেকে অধিবাসীরা বলছেন, সেখানে ১২-১৪ ঘণ্টা লোডশেডিং থাকছে। সুকরে বাসিন্দারা জানিয়েছেন, রমজান মাসে লোডশেডিংয়ের ফলে মানুষের কষ্ট আরও বেড়েছে।
বার্তাসংস্থা এএনআই জানিয়েছে, জ্বালানি সঙ্কট ও প্রযুক্তিগত কারণে এ রকম লোডশেডিং হচ্ছে। পাকিস্তানে এখন বিদ্যুতের চাহিদা ২৫ হাজার মেগাওয়াট। উৎপাদন হচ্ছে ১৮ হাজার মেগাওয়াট। গ্যাস ও অন্য জ্বালানি সঙ্কটের জন্য তাপবিদ্যুৎ কেন্দ্রগুলোতে উৎপাদন কম হচ্ছে। সে সঙ্গে প্রচণ্ড গরমের জন্য চাহিদা অনেকখানি বেড়ে যাওয়ায় লোডশেডিং বেড়েছে।
এদিকে দেশটির প্রধানমন্ত্রী শাহবাজ শরিফ নির্দেশ দিয়ে জানিয়েছেন, মে মাস থেকে তিনি কোনো বিদ্যুৎ সমস্যা দেখতে চান না। এ নিয়ে সম্প্রতি উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকের পর পরিস্থিতি খতিয়ে দেখে তিনি কর্তৃপক্ষকে বলেছেন, গরমের মধ্যে মানুষকে বিদ্যুৎ দিতে হবে। সব সমস্যা দ্রুত মিটিয়ে ফেলতে হবে। এ সমস্যা দূর করতে দীর্ঘমেয়াদি পরিকল্পনাও চেয়েছেন তিনি।