করোনা সংকটে ছুটিতে আসা প্রবাসীরা ফিরতে শুরু করেছে। গত ২ দিনে কক্সবাজার থেকে অন্তত ৪ শত প্রবাসী সৌদি আরব সহ মধ্যপ্রাচ্যে গেছে বলে জানা গেছে।

এদিকে কক্সবাজার বিমান অফিসে টিকিট দিতে শুরু করেছে কর্তৃপক্ষ। তবে করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট সহ বেশ কিছু কাগজ পত্র নতুন সংযোজন করতে হচ্ছে এবং সতর্কতার সাথে সব কাগজ পত্র পূরন করতে হবে এছাড়া দালালদের কাছ থেকে সতর্ক থাকারও পরামর্শ দিয়েছেন কর্তৃপক্ষ।

এদিকে বিমানের টিকিট পেয়ে মহাখুশি প্রবাসীরা। ৩০ সেপ্টেম্বর কক্সবাজার হোটেল প্রবালে অবস্থিত বিমান অফিসে গিয়ে দেখা গেছে সেখানে প্রবাসীদের দীর্ঘ লাইন। সবাই অপেক্ষা করছে বিমানের টিকিটের জন্য। এর মধ্যে বেলা সাড়ে ১১ টায় বিমানের টিকিট হাতে পেয়ে খুশিতে আতœহারা সদর উপজেলার ঈদগাও এলাকার নুরুল ইসলাম জানান, আমি ২ ফেব্রæয়ারী দেশে এসেছিলাম। কিন্তু করোনা সংকটে আর যেতে পারিনি এর মধ্যে ভিসার মেয়াদ শেষ হলেও পরে সৌদিতে যোগাযোগ করে ভিসার মেয়াদ বাড়িয়েছি তবে খুব ভয়ে ছিলাম বিমানের টিকিট পাব কিনা। এর আগেও কয়েকবার এসেছিলাম বিমানের টিকিট পায়নি শেষ পর্যন্ত আজকে ৪ অক্টোবরের টিকিট পেলাম খুব খুশি লাগছে।

এ সময় বাইরে অপেক্ষমান মিঠাছড়ি এলাকার দিদারুল আলম বলেন, আমি সকাল ৮ টায় বিমান অফিসে এসেছি টিকিট করারজন্য। প্রথমে আমাদের ৪০ জনের কাগজ পত্র নিয়েছে পরে ভেতরে ডাকার কথা কিন্তু এখনো ডাকেনি। তাই অপেক্ষা করছি ডাক পড়ারজন্য।

তিনি জানান এখানে কাগজ পত্রের মধ্যে ভিসার মেয়াদের কপি,আকামার কপি,পাসপোর্টের কপি সহ বেশ কিছু কাগজ পত্র দিয়েছি। তিনি জানান আমরা কক্সবাজার সিভিল সার্জন অফিসে করোনা পরীক্ষা করিয়েছিলাম নেগেটিভ রিপোর্টও নিয়েছি কিন্তু এখন শুনছি আবার ঢাকা গিয়ে করোনা পরীক্ষা দিতে হবে। পরে ভেতরে গিয়ে কক্সবাজার অভ্যন্তরীন বিমান কর্তৃপক্ষের ইনচার্জ মোঃ জিয়া উদ্দিন বলেন, আমরা গত বৃহস্পতিবার থেকে সৌদি আরব সহ মধ্যপ্রাচ্যের বিমানের টিকিট দেওয়া শুরু করেছি। এখন বিমানের কোন সমস্যা নেই কিন্তু অনেকের সৌদি আকামা বা ভিসার মেয়াদ নিয়ে সমস্য আছে তাদের জন্য সমস্যা হচ্ছে।

তিনি জানান এখানে আকামা,ভিসা,পাসপোর্ট কপি, সাথে নতুন করে যাত্রীর জন্য সৌদি আরবের মোবাইল নাম্বার,ই মেইল আইডি দিতে হচ্ছে আর যেহেতু বিমানে উঠার ৪৮ ঘন্টা আগের করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট লাগবে তাই ঢাকা অফিসের নির্দেশনা মতে ডি,এন,সি,সি মার্কেট, মহাখালী (মহাখালী বাস স্ট্যান্ডের পাশে) সরকারি ভাবে করোনার সেম্পল দিতে হবে সেখান থেকে করোনা নেগেটিভ রিপোর্ট নিয়ে বিমান উঠতে হবে।

তিনি জানান, মূলত সৌদিতে যারা বৈধ ভাবে আছে যাদের কবিল বা দায়িত্বশীল কর্মকর্তা আছে তাদের সমস্যা হচ্ছেনা। কারন তাদের ভিসার মেয়াদ শেষ হয়ে গেলেও সৌদির সাথে যোগাযোগ করলে ভিসার মেয়াদ বাড়ছে তবে সমস্যা হচ্ছে যাদের কবিল বা দায়িত্বশীল কেউ নেই যারা সৌদিতে গিয়ে কবিল পায়নি বা দালালের মাধ্যমে গেছে তাদের।

এ বিষয়টি স্বীকার করে রামুর আবুল মনছুর বলেন, আমি সৌদি আছি ৮ বছর। তবে কবিলের সাথে আমার কোন সময় দেখা বা কথা হয়নি। আগে আকামার মেয়াদ বাড়াতে সেখানে যে কোম্পানী নিয়ে গেছে সেখানে আত্বীয় আছে তারাই করতো, কিন্তু এখন তিনিও দেশে আবার সেখানে কেউ নেই যে কাজ করতে পারবে তাই ভিসার মেয়াদ বাড়াতে পারছিনা। তবে ইতি মধ্যে আমার এলাকা থেকে ৫০ জনের মত বিমানের টিকিট পেয়ে ঢাকা চলে গেছে তবে আমি যেতে পারিনি।

এ ব্যাপারে বেসামরিক বিমান চলাচল কর্তৃপক্ষের যুগ্ন সচিব পর্যায়ের কর্মকর্তা বলেন, বাংলাদেশ বিমানের কোন সমস্যা নেই সিটও যথেস্টআছে তবে। আর আগামী সম্পাহে সৌদি বিমানও ঢাকা আসা যাওয়া করার সম্ভবনা রয়েছে। আর প্রবাসীদের কিছু কাগজ পত্র বিষয়ে ঝামেলা আছে সেটা মন্ত্রনালয় দেখছে তবে বিমান যাত্রী পরিবহণে প্রস্তুত আছে।