বিডিআরের ঘটনার পেছনে বিএনপি-জামায়াত ও ওয়ান ইলেভেন সৃষ্টিকারীদের সম্পৃক্ততার অভিযোগ করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।তিনি বলেন, ‘সরকারে থেকে আমরা এমন একটা ঘটনা ঘটাবো তা কোনোভাবেই যুক্তিযুক্ত নয়। যারা ক্ষমতায় আসতে পারে নাই তারাই তাদের পেছনে ছিল। তাদের সঙ্গে ছিল ওয়ান ইলেভেন যারা সৃষ্টি করেছিল তারা। আওয়ামী লীগ মেজরিটি নিয়ে ক্ষমতায় আসায় সবকিছুকে নস্যাৎ করার পরিকল্পনায় তারা এই ঘটনা ঘটিয়েছে। একদিন না একদিন এই সত্যটা বের হবে।’

রোববার (৬ সেপ্টেম্বর) সংসদে শোক প্রস্তাবের ওপর আলোচনায় অংশ নিয়ে প্রধানমন্ত্রী এসব কথা বলেন। বিডিআর বিদ্রোহের সময় তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী সাহারা খাতুনের সাহসী ভূমিকার কথা বলতে গিয়ে প্রসঙ্গক্রমে বিডিআর বিদ্রোহের বিষয়টি টানেন।

শেখ হাসিনা বলেন, সাহারা খাতুনের সাহস দেখেছি বিডিআরের ঘটনার সময়। সাহারা আপা ঝুঁকি নিয়ে সেখানে গিয়েছেন। রাতের বেলা সেখানে গিয়ে বিডিআর সদস্যদের আর্মড সারেন্ডার করিয়েছেন। অনেক আর্মি অফিসার ও তাদের পরিবারের সদস্যদের উদ্ধার করে নিয়ে এসেছেন। এজন্য তার জীবনের ওপরও হুমকি এসেছিল। এরকম অবস্থায় তিনি দুঃসাহসিক ভূমিকা রেখেছিলেন। কোনও সাধারণ মানুষ এই সাহস করতে পারতো না। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী হিসেবে তিনি সততার সঙ্গে কাজ করেছিলেন।

তিনি আরো বলেন, আমরা সরকার গঠনের ৫২ দিনের মাথায় এই ঘটনা ঘটলো। ওই ঘটনায় যে ৩৩ জন সেনা অফিসার মারা যান তারা আওয়ামী লীগ পরিবারের। বিডিআরের ডিজি ছিলেন ওই সংসদের সদস্য লুৎফুল হাই সাচ্চু তার আপন চাচাত ভাই। ঘটনার পরে আমাদের চেষ্টা ছিল কোনোমতে এটাকে থামানো। অফিসার ও তাদের পরিবারগুলোকে রক্ষা করা। ওই সময় আমরা সেনাবাহিনী নিয়োগ করার পর তাদের (বিদ্রোহীদের) গুলিতে কয়েকজন সেনা সদস্য মারা গেলেন। বিডিআরের ওই ঘটনাটি ছিল অস্বাভাবিক ঘটনা। ঘটনার আগেরদিন আমরা গেলাম। একটা ভালো পরিবেশ। পরের দিন এই ঘটনা ঘটলো, এর পেছনে কারা আছে? আমরা তো কেবল সরকার গঠন করেছি। এটা কোনোদিনই যুক্তিযুক্ত নয়। সরকার গঠনের পর আমরা এমন একটা ঘটনা কেন ঘটাবো দেশে একটা অস্বাভাবিক পরিবেশ পরিস্থিতি সৃষ্টি হয়? কাজেই যারা তখন ক্ষমতায় আসতে পারে নাই তারাই তাদের পেছনে ছিল। একদিন না একদিন এই সত্যটা বের হবে।

বিএনপি জামায়াতের মিথ্যা বলার একটা আর্ট আছে উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘একুশে আগস্টের গ্রেনেড হামলার পর তারা ব্যাপক প্রচার করে ফেলেছিল আমি নাকি নিজেই গ্রেনেড নিয়ে নিজেই মেরেছি। বিডিআরের ঘটনার পরও তারা এভাবে অপপ্রচার শুরু করেছিল।’

ওয়ান ইলেভেনের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, ২০০৭ সালে যখন আমাকে গ্রেপ্তার করা হয় এবং একের পর এক মামলা দেওয়া হয়। বিএনপি আমার বিরুদ্ধে ১২টি মামলা দিয়েছিল। তত্ত্বাবধায়ক সরকার আসার পর আরও ৫-৬টি মামলা দেওয়া হয়। তাদের প্রচেষ্টা ছিল মামলাগুলো দ্রুত চালিয়ে আমাকে শাস্তি দিয়ে দেবে। বলতে গেলে একদিন পরপর আমাকে কোর্টে হাজিরা দিতে নেওয়া হতো। আর ওই মামলার সময় সাহারা আপা সার্বক্ষণিক উপস্থিত থাকতেন। মামলা পরিচালনা করতে আমাদের আইনজীবীরা এলে পুলিশ তাদের ধাওয়া করতো, গ্রেপ্তার করতো। তাদের ছাড়িয়ে আনতে ছুটে যেতেন সাহারা আপা। এভাবে তার সাহসী ভূমিকা আমরা দেখেছি।

শেখ হাসিনা বলেন, শোক প্রস্তাবে এত পরিচিত মানুষ সবার কথা বলতে গেলে সময় লাগবে। মৃত্যু, এটাই সত্য। জন্মিলে মরিতেই হবে। মৃত্যু মানেই দুঃখ-কষ্ট। আমরা সেই দুঃখ বয়েই চলছি। একের পর এক বহু সংসদ সদস্যকে আমরা হারাচ্ছি। প্রতিবারই আমাদের শোক প্রস্তাব গ্রহণ করতে হচ্ছে। বিশেষ করে করোনাভাইরাস আসার পর এটা আরও বৃদ্ধি পেয়েছে।