বয়স মোটে ১৫। এই বয়সেই মিলেছে বিগ ব্যাশের মতো আসরে খেলার সুযোগ। নূর আহমাদ যেন আনন্দে আকাশে উড়ছেন। আফগানিস্তানের এই চায়নাম্যান বোলার নিজেকে মনে করছেন বিশ্বের সবচেয়ে সৌভাগ্যবান ক্রিকেটার।

এখনও আন্তর্জাতিক ক্রিকেট খেলার সুযোগ পাননি নূর। প্রথম শ্রেণির ম্যাচ খেলেছেন ১টি, লিস্ট ‘এ’ ম্যাচ ২টি। এর মধ্যেই বিশ্ব ক্রিকেটে নিজের একটি পরিচিতি তিনি গড়তে পেরেছেন। গত অনূর্ধ্ব-১৯ বিশ্বকাপে তিনি নজর কাড়েন দারুণভাবে। ৫ ম্যাচে উইকেট নিয়েছিলেন ৭টি। তবে আলোচনার জন্ম দিয়েছিলেন তিনি মূলত বোলিং স্কিল ও বৈচিত্র দিয়ে।

যুব বিশ্বকাপে বোলিং দেখেই গত ক্যারিবিয়ান প্রিমিয়ার লিগে তাকে দলে নেয় সেন্ট লুসিয়া জুকস। তবে ভিসা জটিলতায় ওই টুর্নামেন্টে তার খেলা হয়নি। এবার পেয়ে গেছেন আরও বড় মঞ্চ। খেলবেন মেলবোর্ন রেনেগেডসের হয়ে।

ইএসপিএনক্রিকইনফোকে দেওয়া সাক্ষাৎকারে নূর বললেন, বিগ ব্যাশে নিজেকে আরও পরিণত করে তুলতে চান তিনি।

“ আমার মনে হচ্ছে, আমি বিশ্বের সবচেয়ে সৌভাগ্যবান ক্রিকেটার। বিগ ব্যাশের মতো বিশ্বের সেরা ও সবচেয়ে বড় লিগগুলোর একটিতে সুযোগ পেয়েছি আমি। আমার যে বয়স, আমি নিশ্চিত যে আমার জন্য এটি দারুণ সুযোগ এবং অনেক অভিজ্ঞতা নিয়ে দেশে ফিরতে পারব।”

“ এই লিগ থেকে অনেক কিছু শিখতে পারব এবং আমার ক্রিকেট আরও পরিণত হবে, আরও আত্মবিশ্বাসী হব। আমার পরিবারও খুব খুশি। সব পরিবারই চায় তাদের সন্তানকে বড় মঞ্চে দেখতে।”

বিগ ব্যাশে নূরের দলেই আছেন আরেক রিস্ট স্পিনার ইমরান তাহির, যার বয়স ৪১ বছর। নূরের সঙ্গে এই দক্ষিণ আফ্রিকান স্পিনারের বয়সের ব্যবধান ২৬ বছর! সেটি নিয়ে মজা করলেন নূর, তাহিরের কাছ থেকে শেখার প্রত্যয়ও জানালেন।

“আমার বাবার বয়স ৪৮ বছরের মতো! ইমরান তাহির বিশ্বের সেরা লেগ স্পিনারদের একজন। তার সঙ্গে একই দলে থেকে আমি রোমাঞ্চিত। আমি নিশ্চিত সে তার অভিজ্ঞতা আমার সঙ্গে ভাগাভাগি করবে এবং নেট সেশনে তার কাছ থেকে অনেক শিখব আমি।”

বিগ ব্যাশে খেলার সুযোগ পাওয়ার পর নূর জানালেন তার ভবিষ্যৎ লক্ষ্য ও স্বপ্নের কথাও।

“ আমার সবচেয়ে বড় স্বপ্ন আফগানিস্তান জাতীয় দলের হয়ে খেলা। তবে আইপিএলেও অবশ্যই খেলতে চাই। কোনো সংশয় নেই, আইপিএল বিশ্ব ক্রিকেটের বড় এক মঞ্চ এবং প্রতিটি পেশাদার ক্রিকেটারের স্বপ্ন এখানে খেলা।”