সদর উপজেলার গড়েয়া ইউনিয়নের গোপালপুর বানিয়াপাড়া গ্রামের পরেশ চন্দ্র বর্মণের বাড়িতে দুই দিন ধরে অবস্থান করছেন ১৯ বছর বয়সী এই তরুণী।

পরেশ  চন্দ্রের (২৩) ছেলে তাপস চন্দ্র বিয়ের কথা বলে তাকে ধর্ষণ করার পর এখন আর বিয়ে করতে চান বলে তার অভিযোগ।

তিনি সাংবাদিকদের বলেন, “তাপস দুই বছর ধরে বিয়ের প্রলোভন দেখিয়ে আমাকে ধর্ষণ করেছে। কিন্তু সে এখন বিয়েতে রাজি না। বিয়ের দাবিতে তাপসের বাড়িতে অনশন শুরু করেছি। আমি তাকেই বিয়ে করব। না হলে তার বাড়িতেই আমার শেষ নিশ্বাস ত্যাগ করব।”

গড়েয়া ইউনিয়নের ৩ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য মনোরঞ্জন শীল বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমকে জানান, বৃহস্পতিবার দুপুর থেকে ওই ছাত্রী তাপসের বাড়িতে অবস্থান করছেন।  ঘটনার পর থেকে তাপস পলাতক রয়েছেন।

তিনি বলেন, বিষয়টি নিয়ে বৃহস্পতিবার দুপুরে ইউনিয়ন পরিষদে বসার কথা ছিল। সেদিন মেয়েপক্ষ আসলেও ছেলেপক্ষের কেউ আসেনি। এরপর ওই ছাত্রী তাপসের বাড়িতে অবস্থান নিয়ে অনশন শুরু করেন।

ইউনিয়ন পরিষদ চেয়ারম্যান রেজওয়ানুল ইসলাম রেদো শাহ বলেন, “আমরা ব্যর্থ হয়েছি। মেয়েপক্ষকে আইনের আশ্রয় নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়েছে। কিন্তু এখন শুনছি মেয়েটি বিয়ের দাবিতে ছেলের বাড়িতে গিয়ে অনশন শুরু করেছেন।”

এ বিষয়ে তাপস চন্দ্র বর্মণ ও তার পরিবারের সদস্যদের ফোনেএকাধিকবার যোগাযোগ করা হলেও তারা কেউ সাড়া দেননি।

পুলিশ খবর পেয়েছে। কিন্তু কেউ অভিযোগ দেয়নি। অভিযোগ দিলে আইনগত ব্যবস্থা নেওয়া হবে বলে সদর থানার ওসি তানভিরুল ইসলাম জানিয়েছেন।