নোয়াখালীর হাতিয়ার ভাসানচর আশ্রয়ণ প্রকল্প থেকে দালালের মাধ্যমে পালানোর সময় সুবর্ণচরের মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের স্থানীয়রা এক দালাল ও পাঁচ রোহিঙ্গা যুবককে আটক করে পুলিশে সোপর্দ করেছে।

শুক্রবার (৩ জুন) সকালে আটককৃত দালালকে মানব পাচার আইনে ভাসানচর থানায় দায়ের করা একটি মামলায় গ্রেপ্তার দেখিয়ে কারাগারে প্রেরণ করা হয়। রোহিঙ্গাদের ভাসানচর আশ্রয়ণ প্রকল্পে ফেরত পাঠানো হবে।

আটককৃত রোহিঙ্গারা হচ্ছেন, ভাসানচর আশ্রয়ণের ৮৫ নং ক্লাস্টারের নুরুল আলমের ছেলে ইলিয়াস (২৬), ৬৪ নং ক্লাস্টারের আমান উল্যার ছেলে হাফিজ উল্যা (২২), ৫৯ নং ক্লাস্টারের মো. হাছানের ছেলে ইলিয়াছ (২৭), ৭৩ নং ক্লাস্টারের অলি মোল্লার ছেলে আবু রায়হান (২১) এবং ৮৬ নং ক্লাস্টারের নুরুল ইসলামের ছেলে জাহাঙ্গীর আলম (২৭)। আটকৃকত দালাল মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের চর মোজাম্মেল গ্রামের আবদুল হাশেমের ছেলে জসিম উদ্দিন (২৮)।

স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, বৃহস্পতিবার (২ জুন) সন্ধ্যায় সুবর্ণচর উপজেলার মোহাম্মদপুর ইউনিয়নের আক্তার মিয়ার হাট এলাকায় ঘোরাঘুরি করছিল কয়েকজন যুবক। বিষয়টি স্থানীয়দের সন্দেহ হলে তাদের আটক করে জিজ্ঞাসাবাদে তারা নিজেদের রোহিঙ্গা বলে স্বীকার করে। এসময় তাদের সাথে থাকা দালাল জসিম উদ্দিনকেও আটক করা হয়। রাতে ছনখোলা পুলিশ ক্যাম্পের মাধ্যমে তাদের চরজব্বার থানায় হস্তান্তর করা হয়।

চরজব্বার থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. জিয়াউল হক বলেন, প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে আটককৃত রোহিঙ্গারা স্বীকার করেছে টাকার বিনিময়ে দালাল জসিমের মাধ্যমে তারা ভাসানচর থেকে কক্সবাজার যাওয়ার উদ্দেশ্যে সুবর্ণচর আসে। ভাসানচর থেকে সুবর্ণচরের বোয়ালখালি ঘাট পরে সেখান থেকে তাদের সীতাকুণ্ড নামিয়ে দেওয়ার কথা ছিল জসিমের।