সম্প্রতি ডিজে নিউজ ২৪সহ বিভিন্ন ভূঁয়া একাউন্ট এবং বিভিন্ন সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে স্বার্থান্বেষী মহলের প্ররোচনায় স্থানীয় গ্রাম্য রাজনীতির সুত্রধরে আমার বিরুদ্ধে মাদক ও পুলিশের দালাল আখ্যা দিয়ে ব্যক্তিগত ও সামাজিকভাবে হেয়পন্ন করার অপচেষ্টা চালাচ্ছে। যা সুশীল সমাজে মুখোশের আড়ালে ভিত্তিহীন অপপ্রচার মোটেও কাম্য না। আমি যদি কোন ধরনের অপরাধের সাথে জড়িত থাকি তাহলে সরাসরি প্রকাশ্যে বললে আমি কৃতার্থ হবো।

সর্বসাধারণের অবগতির জন্য জানাতে চাই যে,আমি হ্নীলা ৫নং ওয়ার্ডের বাসিন্দা এবং পর পর দুই বারের মেম্বার পদে প্রতিদ্বন্দি ছিলাম। তাছাড়া আওয়ামী রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত থাকায় ৫নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতির দায়িত্বে রয়েছি। এছাড়া দীর্ঘদিন ধরে হ্নীলা ষ্টেশনে ক্যাবল লাইন ও ইলেকট্রনিক্স সামগ্রীর ব্যবসা করে আসছি। পাশাপাশি হ্নীলা সুফিয়া সরকারী প্রাইমারী স্কুল পরিচালনা কমিটির সহসভাপতি,হ্নীলা প্রি-ক্যাডেট স্কুল পরিচালনা কমিটির সহসভাপতি,রাসুলাবাদ ইসলামি মদিনাতুল উলুম ইবতেদায়ী মাদ্রাসা পরিচালনা কমিটির সদস্য,আল্লামা ফকির মোহাম্মদ মোমিনা খাতুন এতিম খানা পরিচালনা কমিটির সদস্য,হ্নীলা বাসষ্টেশন ব্যবসায়ী সমিতির সহসভাপতি,এ্যাকশন বাংলাদেশ হ্নীলা ইউনিয়ন ফোরা কমিটির প্রচার সম্পাদক,হ্নীলা ৫নং ওয়ার্ড কমিউনিটি পুলিশিং ফোরামের সাধারণ সম্পাদক হিসেবে দায়িত্বে রয়েছি। এসব কারণে স্থানীয় জনসাধারণ এবং আইন প্রয়োগকারী সংস্থাসহ বিভিন্ন প্রশাসনের সাথে সরকারী দলের কর্মী হিসেবে আমার আনা-গোনা ছিল। যথাসাধ্য সম্ভব জননেত্রী শেখ হাসিনার প্রতি মানুষের আস্থা ফেরাতে তৃণমূল পর্যায়ে কাজ করেছি।

এসব পদে আসীন এবং অপরাধীদের বিরুদ্ধে প্রশাসনকে সহায়তা এবং করোনাকালীন সময়ে অসহায় মানুষের পেটে একমুঠো ভাত যোগানোর জন্য সর্বস্তরের নেতাকর্মী এবং জনপ্রতিনিধিদের সাথে সমন্বয় করে কাজ করছি। হয়তো বিশেষ সুবিধাভোগী মহল আমার এই মানবিক কাজে ঈর্ষান্বিত হয়ে প্রতিহিংসা পরায়ন হয়ে উঠে। কোন উপায়ান্তর না দেখে মুখোশের আড়ালে গিয়ে এসব ভিত্তিহীন অপপ্রচারে নেমেছে। আমার কোন ত্রæটি আপনাদের নজরে এলে সরাসরি বলেন আমি সংশোধন করে নেব। অন্যথায় মুখোশের আড়ালে থাকা অপপ্রচারকারীদের তথ্য প্রযুক্তির মাধ্যমে সনাক্ত করে আইনের আওতায় আনা হবে। এই ব্যাপারে এলাকার শুভাকাংখী,রাজনৈতিক ও উন্নয়ন সহকর্মী,আইন-শৃংখলা বাহিনীকে বিভ্রান্ত না হওয়ার আহবান জানাচ্ছি।

প্রতিবাদকারী :
আবুল কালাম আলম।