হেফাজতে ইসলামের কেন্দ্রীয় যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হকের ‘দ্বিতীয় স্ত্রী’ জান্নাত আরা ঝর্ণার বাবা ওলিয়ার রহমানকে পুলিশি হেফাজতে নেওয়া হয়েছে। রবিবার বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশ- ডিএমপির ডিবি পুলিশের একটি দল ফরিদপুরের আলফাডাঙ্গা থানা থেকে তাকে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশ্যে রওনা হয়।

ওলিয়ার রহমান আলফাডাঙ্গার গোপালপুর ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের ৪ নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি ছিলেন। গত ২১ এপ্রিল বিকালে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী কমিটির সভায় তাকে বহিষ্কার করা হয়।

রবিবার আলফাডাঙ্গা থানার ওসি মো. ওয়াহিদুজ্জামান ঢাকাটাইমসকে বলেন, ‘ওলিয়ার রহমানকে আটক বা গ্রেপ্তার করা হয়নি। হয়ত ডিএমপির ডিবি পুলিশ তাদের মামলার তদন্তের স্বার্থে তার (ওলিয়ার) সঙ্গে কথা বলবে।

এর আগে গতকাল রাতে আমরা তাকে থানায় এনেছিলাম। আজ বেলা সাড়ে ১১টার দিকে ডিবির একটি দল ওলিয়ার রহমানকে নিয়ে ঢাকার উদ্দেশে রওনা হয়েছে। যতটুকু জানি মামলার তদন্তের স্বার্থে তাকে ঢাকায় নিয়ে গেছে।’

এর আগে ১২ এপ্রিল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ থেকে ওলিয়ার রহমানকে কেন বহিষ্কার করা হবে না মর্মে কারণ দর্শানোর নোটিশ পাঠান। ওই নোটিশে সাত দিনের মধ্যে জবাব দিতে বলা হয়েছিল। ১৯ এপ্রিল ওই সাত দিন পার হয়। এই প্রেক্ষাপটে ২১ এপ্রিল ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের এক নির্বাহী সভায় ওলিয়ারকে দল থেকে সাময়িকভাবে বহিষ্কার করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

নারায়ণগঞ্জের সোনারগাঁও এলাকার একটি রিসোর্টে গত ৩ এপ্রিল হেফাজত ইসলামের যুগ্ম মহাসচিব মামুনুল হককে এক নারীসহ ঘেরাও করা হয়। ওই নারীর নাম জান্নাত আরা ঝর্ণা। তখন হেফাজত নেতা মামুনুল হক তাকে নিজের দ্বিতীয় স্ত্রী দাবি করেন।

গত রবিবার হেফাজতের এই নেতাকে রাজধানীর মোহাম্মদপুর থানার একটি মামলায় গ্রেপ্তার করা হয়। পরের দিন আদালত তাকে জিজ্ঞাসাবাদের জন্য সাতদিনের রিমান্ড মঞ্জুর করে। আজ তা শেষ হয়েছে।