ভ্যাকসিন উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠান অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকা ৬ থেকে ১৭ বছরের মধ্যে ২৪০ জন শিশুদের মধ্যে টিকার কার্যকারিতা যাচাই করার জন্য পরীক্ষামূলক কর্মসূচি গ্রহণ করবে।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলো নিরাপদ ঘোষণা করার লক্ষ্যে ভবিষ্যতে শিশুদের ওপর ব্যাপকভাবে টিকা দেওয়ার উদ্দ্যোগ হাতে নিতে চলতি মাসের শেষে এই কার্যক্রম শুরু হবে।

৫০টিরও বেশি দেশে ১৮ বছরের বেশি বয়সীদের ওপর ব্যাপকভাবে ব্যবহারের জন্য অক্সফোর্ডের ভ্যাকসিন অনুমতি দেওয়া হয়েছে, যা উৎপাদন ও বিতরণ করছে অ্যাস্ট্রাজেনেকা।

অক্সফোর্ড ইউনিভার্সিটির টিকা পরীক্ষার প্রধান গবেষক অ্যান্ড্রু পোলার্ড বলেছেন, ‘বেশির ভাগ শিশু কোভিড-১৯-এর কারণে মারাত্মকভাবে অসুস্থ হয় না। শিশু ও তরুণদের টিকার ক্ষেত্রে সুরক্ষা এবং রোগ প্রতিরোধের বিষয়টি নিশ্চিত করা জরুরি, কেননা এতে করে তারা টিকা থেকে উপকার পেতে পারে’।

অন্যান্য ওষুধ কোম্পানিগুলোও তাদের তৈরি কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন শিশুদের ব্যবহারের জন্য পরীক্ষা করে যাচ্ছে। ষোল থেকে তদূর্ধ্ব বয়সীদের ব্যবহারের জন্য কোভিড-১৯ এর টিকার অনুমোদন পাওয়া ফাইজার গত অক্টোবর থেকে ১২ বছর বয়সীদের ওপর ব্যবহারের জন্য পরীক্ষা করে যাচ্ছে। এ ছাড়া ১২ বছর বয়সীদের শরীরে ভ্যাকসিন প্রয়োগের জন্য গত ডিসেম্বরে পরীক্ষা শুরু করেছে মডার্না।