Beautiful bright abstract red background with old paper texture

মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম সংগঠক ও ক্রীড়া ব্যক্তিত্ব শহীদ শেখ কামালের ৭২তম জন্মবার্ষিকী আজ (৫ আগস্ট)। ১৯৪৯ সালের আজকের এ দিনে গোপালগঞ্জের টুঙ্গিপাড়ায় জন্মগ্রহণ করেন তিনি।

ভাইবোনের মধ্যে তিনি ছিলেন দ্বিতীয়। শেখ কামাল ঢাকার শাহীন স্কুল থেকে এসএসসি এবং ঢাকা কলেজ থেকে এইচএসসি পাস করেন। পরবর্তীতে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাজবিজ্ঞান বিভাগ থেকে বিএ (অনার্স) পাস করেন। যুদ্ধের পর তিনি সেনাবাহিনী ত্যাগ করেন এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে ফিরে যান। সেখান থেকে সমাজবিজ্ঞানে স্নাতক ও স্নাতকোত্তর সম্পন্ন করেন।

বহুমাত্রিক প্রতিভার অধিকারী কামাল বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কার্যনির্বাহী সংসদের সদস্য ছিলেন।  ১৯৬৯-এর গণঅভ্যুত্থান ও ১৯৭১ সালে মহান মুক্তিযুদ্ধে অংশগ্রহণ করেন। স্বাধীন বাংলাদেশে খেলাধুলা ও শিল্প-সাহিত্যের প্রসারে তার আহত দিয়েই গড়ে উঠে একাধিক প্রতিষ্ঠান।

স্বাধীন বাংলাদেশের প্রথম ওয়ার কোর্সে প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত হয়ে তিনি মুক্তিবাহিনীতে কমিশনন্ড লাভ করেন ও মুক্তিযুদ্ধের প্রধান সেনাপতি জেনারেল ওসমানির এডিসি হিসেবে দায়িত্ব পালন করেন।

খেলাধুলায় প্রচণ্ড উৎসাহ ছিল তার। উপমহাদেশের অন্যতম ক্রীড়া সংগঠন ‘আবাহনী ক্রীড়াচক্র’ এর প্রতিষ্ঠাতা ছিলেন তিনি। পাশাপাশি ঢাকা থিয়েটারের অন্যতম প্রতিষ্ঠাতা কামাল ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের নাট্যাঙ্গনে প্রতিষ্ঠিত ছিলেন। বন্ধু শিল্পীদের নিয়ে গড়ে তুলেছিলেন ‘স্পন্দন শিল্পী গোষ্ঠী’।

এ সময় বাংলাদেশ কৃষক শ্রমিক আওয়ামী লীগের অঙ্গ-সংগঠন জাতীয় ছাত্র লীগের কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ছিলেন তিনি।

১৯৭৫ সালের ১৪ জুলাই দেশবরেণ্য অ্যাথলেট ও ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ‘ব্লু’ খ্যাতিপ্রাপ্ত সুলতানা খুকুর সঙ্গে বিয়ে হয় কামালের। বিয়ের মাত্র এক মাসের পর ১৫ আগস্টের কালো রাত্রিতে বঙ্গবন্ধুকে সপরিবারে হত্যা করে স্বাধীনতা বিরোধী। মাত্র ২৬ বছর বয়সে পরিবারের অন্য সদস্যদের সাথে তিনিও বর্বরোচিত হত্যাযজ্ঞের শিকার হন।

শেখ কামালের ৭২তম জন্মবাষির্কী পালনের জন্যে আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে আজ সীমিত পরিসরে বিভিন্ন কর্মসূচি হাতে নেওয়া হয়েছে। সকালে বনানী কবরস্থানে শেখ কামালের কবরে ফুল দিয়ে শ্রদ্ধা জানানো হয়।

প্রথমে প্রধানমন্ত্রী  ও পরে দলের পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানান আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক ওবায়দুল কাদের।

এসময় ওবায়দুল কাদের বলেন, শেখ কামাল ক্রীড়া, সংস্কৃতিসহ সবক্ষেত্রেই ছিলেনন পারদর্শী। যুবলীগ চেয়ারম্যান শেখ কামালের আদর্শ অনুসরণ করে মাদক ছেড়ে তরুণ সমাজকে ক্রীড়া ও সংস্কৃতির সাথে জড়িত হওয়ার আহবান জানান।আওয়ামী লীগ ছাড়াও যুবলীগ, ছাত্রলীগ, স্বেচ্ছাসেবকলীগসহ দলের সহযোগী সংগঠনগুলোর পক্ষ থেকে শ্রদ্ধা জানানো হয়। শ্রদ্ধা জানান, সাংস্কৃতিক কর্মীরাও।