করোনায় আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন ঢাকাই ছবির এক সময়ের ব্যস্ততম অভিনেত্রী মিনু মমতাজ।

 

মঙ্গলবার দুপুর ১টায় রাজধানীর গ্রিন লাইফ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় অভিনেত্রীর মৃত্যু হয় বলে নিশ্চিত করেছেন তার ভাইয়ের মেয়ে সিলভা।

দুপুর ১টায় মারা গেলেও অভিনেত্রীর পরিবার থেকে কেউ যোগাযোগ না করায় তার মরদেহ এখনও হাসপাতালের মর্গে পড়ে আছে।

এ বিষয়ে মঙ্গলবার রাত পৌনে ১২টার দিকে হাসপাতালে ফোন করা হলে হাসপাতালটির কাস্টমার কেয়ার থেকে সালাউদ্দিন নামে এক কর্মী যুগান্তরকে বলেন, হাসপাতালের রেজিস্ট্রারে অভিনেত্রী মিনু মমতাজের নাম জয়নব হাবিব লেখা আছে। তিনি কোভিড-১৯ রোগী ছিলেন। আজ দুপুরে মারা গেলেও তার মরদেহ নিতে কেউ আসেনি। যে কারণে হাসপাতালের মর্গে তার মরদেহ রাখা হয়েছে।

এ বিষয়ে আর কোনো তথ্য জানেন কি না জিজ্ঞেস করলে তিনি বলেন, এর বেশি আর কিছু জানা নেই তার। সকাল (বুধবার) ৯টায় ফোন করলে বিস্তারিত জানতে পারবেন।

একই অভিযোগ জানিয়েছিলেন অভিনেত্রীর ভাইয়ের মেয়ে সিলভা।

তিনি জানান,মিনু চাচীর মরদেহ এখনও হাসাপাতালের মর্গে রয়েছে। তার চিকিৎসায় প্রায় ৩ লাখের বেশি বিল এসেছে। যা পরিশোধের জন্য চাচীর ছেলেরা আসছেন না। তার ছেলেরা সবাই ঢাকার বাইরে। তাই আমরা এখান তার মরদেহও বের করতে পারছি না।

জানা গেছে, বেশ কিছুদিন ধরে কিডনি এবং চোখের সমস্যায় ভুগছিলেন অভিনেত্রী মিনু মমতাজ। করোনার উপসর্গ দেখা দিলে গত ৪ সেপ্টেম্বর মিনু মমতাজকে তার আত্মীয়রা গ্রিন লাইফ হাসপাতালে নিয়ে আসেন। সেখানেই টেস্ট করার পর তার করোনা পজিটিভ রিপোর্ট আসে। এরপর থেকে তাকে করোনার বিশেষ বিভাগে ভর্তি রেখে চিকিৎসা দেয়া হচ্ছিল।

প্রসঙ্গত, অভিনেত্রী মিনু মমতাজকে চিকিৎসার জন্য গত বছর ৫ লাখ টাকা অনুদান দিয়েছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। কয়েক দশক ধরে টিভি নাটকে নিয়মিত অভিনয় করেছেন মিনু মমতাজ। অনেক সিনেমায়ও কাজ করেছেন তিনি।