সহজ জয়ে কোপা মিশন শুরু করেছে ব্রাজিল। সোমবার রাতে উদ্বোধনী ম্যাচে খর্ব শক্তির ভেনিজুয়েলাকে ৩-০ গোলে হারিয়েছে সেলেকাও শিবির।

ব্রাসিলিয়ার মানে গারিঞ্চায় ‘এ’গ্রুপের ম্যাচে মার্কিনিয়োস দলকে এগিয়ে নেয়ার পর দ্বিতীয়ার্ধে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন নেইমার। শেষ দিকে জালের দেখা পান গাব্রিয়েল বারবোসা। দারুণ জয়ে শিরোপা ধরে রাখার মিশনে প্রত্যয়ী নেইমাররা। দেশের মাটিতে কোপা আমেরিকার ম্যাচে এ নিয়ে টানা ২১ ম্যাচে অপরাজিত থাকল ব্রাজিল।

করোনার কারণে ভেনিজুয়েলা দল অনেকটাই শক্তি হারিয়েছে। কোভিড-১৯ এ আক্রান্ত হয়েছেন আট খেলোয়াড়সহ দলের ১৩ জন। প্রথম পছন্দের সাত জনকে ছাড়া খেলতে নেমেছিল ভেনিজুয়েলা। অনুমিতভাবে ছন্দে থাকা ব্রাজিলকে তেমন চাপে রাখতে পারেনি দলটি। উল্টা চাপে থেকে হজম করতে হয়েছে তিন গোল।

আট মিনিটে প্রথম গোলের সুযোগ পায় ব্রাজিল। নেইমারের কর্নারে কাছের পোস্টে রিশার্লিসনের ফ্লিকে স্রেফ পা ছোঁয়ানোর প্রয়োজন ছিল কারো। কিন্তু পারেনি কেউ।

১১ মিনিটেও এগিয়ে যেতে পারত ব্রাজিল। রেনান লোদির ফ্রি কিকে হেড লক্ষ্যে রাখতে পারেননি অরক্ষিত এদের মিলিতাও। ৯ মিনিট পর দূরপাল্লার শটে গোলের চেষ্টা করেন ডানিলো। বুলেট গতির শট ঠেকিয়ে দেন গোলরক্ষক।

২৩ মিনিটে এগিয়ে যায় ব্রাজিল। নেইমারের কর্নার থেকে গোল করেন মার্কিনিয়োস। দুই মিনিট পর জালে বল পাঠান রিশার্লিসন। তবে তিনি অফসাইডে ছিলেন। ৩০ মিনিটে মিলিতাওয়ের উঁচু করে বাড়ানো বল ডি-বক্সে পেয়ে একটুর জন্য শট লক্ষ্যে রাখতে পারেননি নেইমার। বেঁচে যায় ভেনিজুয়েলা।

দলের তারকা ফুটবলারদের ছাড়া দল গড়া ভেনিজুয়েলা গোলের প্রথম সুযোগ তৈরি করে ৩৯ মিনিটে। মার্তিনেসের ফ্রি কিক থেকে ফার্নান্দো আরিসতেগেইতার হেড সহজেই ফেরান গোলরক্ষক আলিসন। যোগ করা সময়ে সফরকারীদের আরেকটি চেষ্টা ব্যর্থ করে দেন তিনি।

দ্বিতীয়ার্ধের ৬৪ মিনিটে সফল স্পট কিকে ব্যবধান দ্বিগুণ করেন নেইমার (২-০)। ডানিলোকে ইয়োহান কুমানা ফাউল করায় পেনাল্টি পেয়েছিল ব্রাজিল। চোট কাটিয়ে আন্তর্জাতিক ফুটবলে ফেরার পর এ নিয়ে টানা তিন ম্যাচে গোল পেলেন নেইমার।

ব্রাজিলের শেষ গোলটি ম্যাচের শেষ মুহূর্তে। ৮৯ মিনিটে নেইমারের পাসে গোলটি করেন বারবোসা। ব্রাজিলের শেষ তিন ম্যাচে এটি নেইমারের তৃতীয় ‘অ্যাসিস্ট।’ দারুণ জয় নিয়ে মাঠ ছাড়ে ব্রাজিল।