দেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ কয়েক দিন ধরে অব্যাহতভাবে বাড়ছে। সাড়ে তিন মাস পর গত এক দিনে শনাক্তের হার পাঁচ শংতাংশ ছাড়িয়েছে। গত এক দিনে ২০ হাজার ২০৪টি নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হয়েছেন ১ হাজার ১৪৬ জন, যাতে শনাক্তের হার ৫.৬৭ শতাংশ।

এর আগে গেল বছরের ২১ সেপ্টেম্বর সাড়ে ছয় মাস পর দেশে করোনাভাইরাসে দৈনিক শনাক্তের হার পাঁচের নিচে নামে। সেদিন করোনা শনাক্ত হয় ১ হাজার ৫৬২ জনের, যাতে শনাক্তের হার ছিল ৪.৬৯ শতাংশ।

শুক্রবার বিকালে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর থেকে পাঠানো সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, গত এক দিনে ২০ হাজার ২০৪ জনের নমুনা পরীক্ষায় শনাক্ত হন ১ হাজার ১৪৬ জন। পরীক্ষার বিপরীতে শনাক্তের হার ৫.৬৭ শতাংশ। এ পর্যন্ত শনাক্ত ১৫ লাখ ৯১ হাজার ৯৩ জন, যাতে মোট শনাক্তের হার ১৩.৬৮ শতাংশ।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, গত এক দিনে সুস্থ হয়েছেন ১৭০ জন। এনিয়ে মোট সুস্থ ১৫ লাখ ৫০ হাজার ৫৩৪ জন।

স্বাস্থ্য অধিদপ্তর আরও জানায়, গত এক দিনে করোনা মারা গেছেন একজন নারী। এ নিয়ে মোট মৃত্যু ২৮ হাজার ৯৮ জনের।

২০২০ সালের ৮ মার্চ দেশে প্রথম করোনা শনাক্ত হয়। এর ১০ দিন পর ১৮ মার্চ করোনায় প্রথম মৃত্যুর খবর আসে। এরপর থেকে মাঝখানে দুই দিন কেটেছে মৃত্যুহীন। এছাড়া বাকি সব দিনই মৃত্যু দেখেছে বাংলাদেশ।

গত জুলাই-আগস্ট মাসে দেশে করোনায় মৃত্যু ও শনাক্ত চরম আকার ধারণ করলেও সেপ্টেম্বর থেকে তা কমতে শুরু করে। ডিসেম্বরের শুরু পর্যন্ত সেই ধারা অব্যাহত ছিল। কিন্তু গত কয়েক সপ্তাহ ধরে অব্যাহতভাবে বাড়ছে সংক্রমণ।

ইতিমধ্যে করোনার নতুন ধরন ওমিক্রন দেশেও শনাক্ত হয়েছে। ১০ জনের শরীরে নতুন এই ভেরিয়েন্টটি ধরা পড়েছে। অতি দ্রুত সময়ে ছড়িয়ে পড়া ভেরিয়েন্টটি নিয়ে দেখা দিয়েছে উদ্বেগ। স্বাস্থ্যমন্ত্রী জাহিদ মালেক জানিয়েছেন, পরিস্থিতি বেসামাল হয়ে গেলে আবার দেশে বিধিনিষেধ জারি হতে পারে।