দেশে কৈশোরকালীন পুষ্টি কার্যক্রম নিশ্চিত করতে মেয়ে শিক্ষার্থীদের প্রতি সপ্তাহে একটি করে আয়রন ট্যাবলেট খাওয়ানোর সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে। শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান খোলার পর এই কার্যক্রম শুরু হবে। ফলে আগামী ৪ ফেব্রুয়ারির মধ্যে ছাত্রীদের তালিকা সংগ্রহ করে চাহিদা মোতাবেক ট্যাবলেট সংগ্রহের নির্দেশ দেয় মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তর (মাউশি)।

মঙ্গলবার মাধ্যমিক ও উচ্চ শিক্ষা অধিদপ্তরের (মাউশি) মহাপরিচালক প্রফেসর ড. সৈয়দ মো. গোলাম ফারুকের স্বাক্ষরিত এ নির্দেশ দেয়া হয়।

নির্দেশনায় বলা হয়েছে, সারাদেশে কিশোর-কিশোরীদের পুষ্টি কার্যক্রম নিশ্চিত করতে Adolesent Nutrition Training অ্যাপসের মাধ্যমে লক্ষাধিক শিক্ষক-কর্মকর্তাকে পুষ্টি বিষয়ক প্রশিক্ষণ দেয়া হয়েছে। যাতে বিদ্যালয় পর্যায়ে পুষ্টি কার্যক্রমটি সঠিকভাবে পরিচালনা করা যায়। স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের সহযোগিতায় (স্মারক নং:আইপিএইচিএন/এনএনএস/৯৮/২০২১/৩০, তারিখ: ১২/০১/২০২১) কৈশোরকালীন পুষ্টি কার্যক্রম বাস্তবায়নের লক্ষে দেশের মাধ্যমিক উচ্চ মাধ্যমিক পর্যায়ের সকল শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের মেয়ে শিক্ষার্থীদের আয়রন ফলিক এসিড ট্যাবলেট প্রতি সপ্তাহে একটি করে খাওয়ানোর সিদ্ধান্ত গ্রহণ করা হয়েছে।

সেখানে সকল উপজেলা/থানা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তারা তার নিজ নিজ উপজেলা/থানার প্রত্যেক মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক স্কুলের মেয়ে শিক্ষার্থীদের তালিকা সংগ্রহ করে চাহিদা মোতাবেক আগামী ৪ ফেব্রুয়ারি ২০২১ এর মধ্যে উপজেলা স্বাস্থ্য ও পরিবার পরিকল্পনা কর্মকর্তার কার্যালয় থেকে আয়রন ফলিক এসিড সংগ্রহ করে সংরক্ষণ করার জন্য বলা হয়। এছাড়াও আয়রন ফলিক এসিড ট্যাবলেট সংগ্রহের বিষয়ে জেলা শিক্ষা কর্মকর্তা সংশ্লিষ্ট জেলার সিভিল সার্জনের সঙ্গে সার্বক্ষণিক যোগাযোগ রক্ষাসহ উপজেলা/থানা মাধ্যমিক শিক্ষা কর্মকর্তাদের তদারকি করতেও নির্দেশ দেয়া হয়।

শিক্ষা প্রতিষ্ঠান খোলার পর মধ্যিমিক ও উচ্চশিক্ষা অধিদপ্তরের পরবর্তী নির্দেশনা অনুযায়ী আয়রন ফলিক এসিড ট্যাবলেট খাওয়ানো শুরু হবে বলেও সেখানে উল্লেখ্য করা হয়।