টেকনাফ উপজেলার হ্নীলা মৌলভী বাজারে মাইকে ঘোষণা দিয়ে দুই গ্রুপের সংঘর্ষে পুলিশসহ অন্তত ১৫ জন আহত হয়েছে। বিবদমান দুই গ্রুপের আধিপত্য বিস্তার কে কেন্দ্র করেই এই ঘটনার জম্ম দেয় বলে এলাকা সূত্রে প্রকাশ। (০৮/০৪/২০২২)শুক্রবার জুমার নামাজের পরে টেকনাফের হ্নীলা ইউনয়নের মৌলভীবাজার এলাকায় এ রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে।

আহতরা হলেন- বাদশাহ মিয়া, জাগির হোসেন, শফিক, আব্দুল্লাহ, সরওয়ার, মোহাম্ম্দ আলী। এ সময় দুই পুলিশ সদস্যও আহত হয়েছেন। তারা হলেন- কনস্টেবল হিমেল হোসেন ও শাহরিয়ার।

টেকনাফ মডেল থানার ওসি সহ পুলিশের একটি টিম ও র‌্যাব সদস্যরা ঘটনা স্থলে গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে।

এলাকাবাসী জানায়, শুক্রবার সকালে ১০টার দিকে অটোরিকশার (টমটম গাড়ি) সঙ্গে এক ব্যক্তির ধাক্কা লাগে। এই ঘটনাকে কেন্দ্র কথা কাটাকাটি শুরু হয়। এলাকার মেম্বারসহ গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ বসে সমাধানের আশ্বস দিয়ে জুমার নামাজের পরে বৈঠকের সিদ্ধান্ত হয়। নামাজের পরে স্থানীয় মেম্বার বেলাল উদ্দীনের নেতৃত্বে মসজিদের মাইকে ঘোষাণা দিয়ে আবারো পরিস্থিতি উত্তপ্ত করে। এক পর্যায়ে টেকনাফ-কক্সবাজার মহা সড়কে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়।

এতে দুই গ্রুপ সংঘর্ষে লিপ্ত হয়। উভয় পক্ষের লোকজনকে দেশীয় অস্ত্র নিয়ে সংঘর্ষে লিপ্ত হতে দেখা গেছে। পরে টেকনাফ মডেল থানায় খবর দেওয়া হলে পুলিশ এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। হামলাকারীরা একটি সিএনজি গাড়ি ও  ভাংচুর করে। স্থানীয় মেম্বার বেলাল উদ্দীন জানায়, তুচ্ছ ঘটনা কে কেন্দ্র করে কিছু উশৃংখল যুবক এ ঘটনাটি ঘটিয়েছে। যা অনাকাংকিত ও দুঃখজনক।

টেকনাফ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা কায়সার খসরু বলেন, ‘সংঘর্ষের খবর পেয়ে এলাকায় গিয়ে পুলিশ নিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। সংঘর্ষে দুই পুলিশসহ বেশ কয়েকজন আহত হয়েছেন। তবে পরিস্থিতি এখন নিয়ন্ত্রনে রয়েছে।